৫ই আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, বৃহস্পতিবার, ২১শে শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৫শে জিলহজ, ১৪৪২ হিজরি

শিরোনামঃ-

অস্ত্রের যোগানদাতা প্রাথমিকভাবে শনাক্ত

Khorshed Alam Chowdhury

আপডেট টাইম : আগস্ট ০৮ ২০১৬, ০৩:৪০ | 643 বার পঠিত

26246_f6নয়া আলো ডেস্ক- গুলশান ট্র্যাজেডিতে জঙ্গি অর্থায়ন, অস্ত্রের সম্ভাব্য যোগানদাতা এবং প্রশিক্ষণদাতার অনেক তথ্যই তদন্তকারীদের হাতে এসেছে বলে জানিয়েছেন ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) অতিরিক্ত কমিশনার ও কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম। গতকাল ডিএমপি কার্যালয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ তথ্য দেন। বলেন, এ ঘটনায় আমরা তদন্ত করছি মাসাধিককাল। অনেক তথ্যই পেয়েছি। অর্থায়ন, অস্ত্রের সম্ভাব্য সরবরাহকারী, প্রশিক্ষণদাতা অনেক ধরনের তথ্যই আমাদের হাতে এসেছে। তবে সবগুলো বলার সময় এখন আসেনি। আরেকটু এগুলে বা আরো কিছু আসামি গ্রেপ্তার করতে পারলে যতটুকু সম্ভব তা সুনির্দিষ্টভাবেই জানানো হবে।  মনিরুল ইসলাম বলেন, আমরা তদন্তে অনেক দূর এগিয়েছি। এ ঘটনায় কারা জড়িত নয়, কারা জড়িত এ ধরনের অনেক তথ্যই এসেছে। তবে তদন্ত শেষ হয়নি। গ্রেপ্তার অভিযানও শেষ হয়নি। গ্রেপ্তার অভিযান চলছে। আরো কিছু ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা গেলে আমরা হয়তো পূর্ণাঙ্গ তথ্য আপনাদের দিতে পারবো।
তিনি বলেন, গুলশান ট্রাজেডি মামলার তদন্তকারী সংস্থা কাউন্টার টেররিজম ইউনিট। এর তদন্তকারী কর্মকর্তারা তদন্ত করছেন। হাসনাত করিম এবং তাহমিদকে ৫৪ ধারায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তারা বর্তমানে রিমান্ডে আছে। জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। অতিরিক্ত কমিশনার বলেন, ইনভেস্টিগেশন কমিটির সঙ্গে কথা বলা ছাড়া বা তাদের রেফারেন্স ছাড়া ‘কথিত অনুসন্ধানী রিপোর্ট’ প্রকাশ করা হলে একটা ভুল বোঝাবুঝির সৃষ্টি হতে পারে। স্বাধীনভাবে কাজের ক্ষেত্রে তদন্ত কর্মকর্তা মানসিক চাপ অনুভব করতে পারেন। যে কারণে তদন্ত অনেক সময় বিঘ্নিত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের  প্রধান তদন্তকারী কর্মকর্তা বা সংস্থার সঙ্গে কথা বলা ছাড়া এই ধরনের রিপোর্ট প্রকাশ থেকে বিরত থাকার অনুরোধ জানিয়ে বলেন, আশা করবো তাদের শুভ বুদ্ধির উদয় হোক। গুলশানের নৃশংস জঙ্গি হামলার ঘটনায় প্রকাশিত ছবিতে হাসনাত করিম ও তাহমিদ হাসিব খানের চলাফেরা নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, তারা বর্তমানে রিমান্ডে আছে। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে এই বিষয়ে আমরা আপনাদের সুস্পষ্টভাবে জানাতে পারবো। সেটি যাচাই-বাছাইয়ের জন্য তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। কি পরিস্থিতিতে তাদের হাতে অস্ত্র ছিল বা তাদের বডি ল্যাংগুয়েজ কেমন ছিল, এটি বিশ্লেষণ করা হচ্ছে এবং তার সঙ্গে মিলিয়েই তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। জিজ্ঞাসাবাদ শেষ না হলে এই বিষয়ে আমি আপনাদের পূর্ণাঙ্গ কোনো তথ্য দিতে পারবো না।
তিনি বলেন, যেহেতু তাদের জিজ্ঞাসাবাদ শেষ হয়নি সেহেতু এই বিষয়ে তাদের সম্পৃক্ততা থাকা বা না থাকার বিষয়ে নিশ্চিত করতে পারবো না। মনিরুল ইসলাম বলেন, সন্ধিগ্ধ হিসেবেই তাদের ৫৪ ধারায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে। যদি তদন্তকারী কর্মকর্তার কাছে প্রতীয়মান হয়, এই ঘটনার সঙ্গে সুনির্দিষ্ট সম্পর্কের কোনো প্রমাণ পাওয়া যায় তাহলে সেই ক্ষেত্রে তাদের এই মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হতে পারে। তবে সেটি জিজ্ঞাসাবাদ শেষ না হওয়া পর্যন্ত আমরা নিশ্চিত করে কিছু বলতে পারছি না।
এ পর্যন্ত এই মামলায় কতজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে এমন প্রশ্নের জবাবে এই পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, এখনও পর্যন্ত এই মামলায় কোনো গ্রেপ্তার করা হয়নি। তবে জিজ্ঞাসাবাদের বিভিন্ন পর্যায়ে আছে। যেসব পুলিশ সদস্যরা সেখানে প্রথম উপস্থিত হয়েছিল তাদেরকেও আমরা জিজ্ঞাসাবাদ করছি। অসংখ্য মানুষের ইন্টারভিউ হচ্ছে যারা কোনো না কোনোভাবে জানে। এই কারণে এই মুহূর্তে সুনির্দিষ্টভাবে বলা সম্ভব না। ফাইনালি আমাদের কাছে যাদেরকে আদালতে সাক্ষী করার মতো মনে হবে তাদেরকে আমরা সাক্ষী হিসেবে রাখবো। সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, অপরাধীরা সাজা পাক নিশ্চয় আপনারা সকলেই চান। কাজেই এই ধরনের এক্সক্লুসিভ ছবি যদি কারো কাছে থেকে থাকে তাহলে প্রকাশ্যে অথবা গোপনে তদন্তকারী সংস্থা বা কর্মকর্তার কাছে সরবরাহ করলে তদন্তে সহযোগিতা হবে। আমরা অনেক ছবি পেয়েছি যেগুলো পর্যালোচনা করা হচ্ছে। অপর এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, কেউ কেউ খবর দিচ্ছেন, সেগুলো যাচাই করে অভিযানও চালানো হচ্ছে কিন্তু এখন পর্যন্ত তাদেরকে গ্রেপ্তারে সুনির্দিষ্ট অগ্রগতি হয়নি। মনিরুল ইসলাম বলেন, আমরা চেষ্টা করছি যেন ঢাকা বা ঢাকার বাইরে এই ধরনের কোনো ঘটনা আর না ঘটে। আমরা যদি এভাবে কাজ করতে পারি তাহলে জঙ্গিরা আর সংগঠিত হতে পারবে না। আমরা কাজ করছি যেন তারা ভবিষ্যতে এই ধরনের হামলা করতে না পারে।

Please follow and like us:

পাঠক গনন যন্ত্র

  • 4666377আজকের পাঠক সংখ্যা::
  • 2এখন আমাদের সাথে আছেন::

সর্বশেষ খবর

এ বিভাগের আরও খবর

প্রধান সম্পাদক- খোরশেদ আলম চৌধুরী, সম্পাদক- আশরাফুল ইসলাম জয়,  উপদেষ্টা সম্পাদক- নজরুল ইসলাম চৌধুরী।

প্রধান সম্পাদক কর্তৃক  প্রচারিত ও প্রকাশিত

ঢাকা অফিস : রোড # ১৩, নিকুঞ্জ - ২, খিলক্ষেত, ঢাকা-১২২৯,

সম্পাদক - ০১৫২১৩৬৯৭২৭,০১৮৮০৯২০৭১৩

Email-dailynayaalo@gmail.com নিউজ রুম।

Email-Cvnayaalo@gmail.com সিভি জমা।

 

 

সাইট উন্নয়নেঃ ICTSYLHET