২৮শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, বুধবার, ১৩ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৭ই জিলহজ, ১৪৪২ হিজরি

শিরোনামঃ-
  • হোম
  • তথ্য- প্রযুক্তি
  • আত্মরক্ষার জন্য অ্যাপ তৈরি করলেন মেহেরপুরের কৃতি সন্তান মো. সাদ্দাম হোসেন শাহীন।

আত্মরক্ষার জন্য অ্যাপ তৈরি করলেন মেহেরপুরের কৃতি সন্তান মো. সাদ্দাম হোসেন শাহীন।

Khorshed Alam Chowdhury

আপডেট টাইম : আগস্ট ২১ ২০১৬, ১৪:৪৪ | 710 বার পঠিত

14088997_1744008422503987_1444549702_n.pngসাদ্দাম হোসেন-  একা চলাফেরার সময় দুষ্কৃতকারীদের আক্রমণের শিকার হলে দ্রুত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সেবা পাওয়ার জন্য একটি মোবাইল আপ বের করেছেন মেহেরপুরের তরুণ ডেভেলপার ও ঢাকার ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি’র  কম্পিউটার বিজ্ঞান  প্রকৌশল বিভাগের  শেষ বর্ষের শিক্ষার্থী  মো. সাদ্দাম হোসেন শাহীন। তিনি এই অ্যাপটির নাম দিয়েছেন  সেলফ প্রোটেক্ট অ্যাপ।

দৈনিক নয়া আলো অনলাইন সংবাদ পত্রের সঙ্গে এক সাক্ষাৎকারে সেলফ প্রোটেক্ট অ্যাপ নির্মাণ এবং এর কর্মপ্রক্রিয়া সম্পর্কে বিস্তারিত জানান সাদ্দাম। তিনি বলেন, ‘মোবাইল ফোনে যখন জিপিএস (গ্লোবাল পজিশনিং সিস্টেম) চালু হলো, তখন থেকেই জিপিএস প্রযুক্তি ব্যবহার করে মানুষের নিরাপত্তা কীভাবে নিশ্চিত করা যায়, সে নিয়ে গবেষণা শুরু করি।’

এই গবেষণার শুরুটা হয়েছিল কেমন করে? সাদ্দাম জানালেন, ২০১২ সালে একদিন ছিনতাইকারীর কবলে পড়ে নিজের মোবাইল ফোন ও টাকা খোয়ান তিনি। এরপর ঠিক করেন, জিপিএস প্রযুক্তির সঙ্গে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে সংযুক্ত করা গেলে নিরাপত্তার বিষয়টি কিছুটা হলেও নিশ্চিত করা যায়।

২০১২ সাল থেকেই জিপিএস পদ্ধতি ব্যবহার করে অ্যাপটি তৈরির কাজ শুরু করেন সাদ্দাম। ২০১৪ সালে অংশ নেন পাঁচ দিনব্যাপী মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন (অ্যাপ) তৈরির এক প্রশিক্ষণ কর্মশালায়। এ সময় তাঁর প্রশিক্ষক ছিলেন কৃষ্ণ রায় মিথুন ও ফারুক আহমেদ জুয়েল।

পরে সেলফ প্রোটেক্ট অ্যাপ তৈরির সময় কারিগরি দিকগুলোর বিষয়ে তাঁকে পরামর্শ দিয়েছেন প্রশিক্ষকরা। অ্যাপটি তৈরি করতে দুই বছরের বেশি সময় লেগেছে সাদ্দামের। এখনো অ্যাপটির আরো উন্নত সংস্করণ তৈরিতে কাজ করছেন তিনি।

অ্যাপটি কীভাবে কাজ করবে? জানতে চাইলে সাদ্দাম বলেন, ‘অ্যাপটি প্রথমে স্মার্টফোনে ইনস্টল করতে হবে। অ্যাপটির দুটি অংশ। একটা হচ্ছে ক্লায়েন্ট বা ইউজার অ্যাপস, যা ব্যবহারকারীর স্মার্টফোনে থাকবে। আরেকটি হচ্ছে সার্ভার অ্যাপ বা নোটিফিকেশন রিসিভার অ্যাপ, যেটি পুলিশের কাছে বা পুলিশ স্টেশনে থাকবে।’

সাদ্দাম বলেন, ‘এর পর অ্যাপটি অ্যানাবেল (সক্রিয়) করতে হবে। নির্দিষ্ট বক্সে টিক চিহ্ন দিয়ে অ্যাপসটি সক্রিয় রাখতে হবে। সেবা পাওয়ার জন্য অ্যাপসটিকে সব সময় সক্রিয় রাখতে হবে, যাতে করে যেকোনো বিপদের সময় নির্দিষ্ট পাওয়ার বাটনটি পরপর চারবার চাপার সঙ্গে সঙ্গে নিকটস্থ পুলিশ স্টেশনে প্রয়োজনীয় তথ্যসহ বার্তা (নোটিফিকেশন) পৌঁছে যায়।’

‘বিপদে পড়লে বা অপরাধীদের আক্রমণের শিকার হলে আক্রান্ত ব্যক্তি তাঁর কাছে মোবাইল ফোনে থাকা সেলফ প্রোটেক্ট অ্যাপের নির্দিষ্ট বাটনটি চাপলে অ্যাপটি প্রথমে ব্যক্তির সবচেয়ে কাছের পুলিশ স্টেশনটির অ্যাপ খুঁজে বের করবে। তারপর জিপিএস প্রযুক্তির মাধ্যমে আক্রান্ত ব্যক্তির অবস্থান শনাক্ত করে পুলিশ স্টেশনের সার্ভারে জানাবে। ব্যবহারকারী যে এলাকায় আক্রান্ত হয়েছেন, সেখানকার আশপাশের শব্দ ও ছবি ধারণ করে পুলিশ স্টেশনে পাঠাবে অ্যাপটি, যাতে আক্রান্ত ব্যক্তির সাহায্যার্থে পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছাতে পারে,’ বলেন সাদ্দাম।

সাদ্দাম বলেন, ‘পুলিশ স্টেশনের অ্যাপের সঙ্গে কর্তব্যরত পুলিশ কর্মকর্তাদের কাছেও একই বার্তা মোবাইলে পৌঁছে যাবে টেক্সট মেসেজ আকারে। সার্ভারে পৌঁছানোর পর সংশ্লিষ্ট থানায় দায়িত্বরত নির্দিষ্ট সংখ্যক অফিসারের মোবাইল নম্বরে আক্রান্ত ব্যক্তির নোটিফিকেশনটি টেক্সট মেসেজ আকারে পৌঁছে যাবে।’

সাদ্দাম জানান, অ্যাপটি ব্যবহার করার জন্য ব্যবহারকারীর কোনো ইন্টারনেট কানেকশন বা ডাটা অন থাকার প্রয়োজন নেই। অর্থাৎ ব্যবহারকারীর ইন্টারনেট কানেকশন অফ থাকলেও জিপিএস চালু থাকার কারণে সার্ভিস প্রোভাইডার বা মোবাইল অপারেটরের সাহায্যে বার্তাটি পুলিশ স্টেশনে পৌঁছাবে।

তবে সার্ভার অ্যাপ্লিকেশন বা পুলিশের কাছে থাকা অ্যাপে ইন্টারনেট কানেকশন থাকতে হবে, যেন ব্যবহারকারী বা ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তির কাছ থেকে প্রাপ্ত প্রয়োজনীয় তথ্যসমৃদ্ধ বার্তাটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে পৌঁছানোর সঙ্গে সঙ্গেই অপরাধ সংঘটিত হওয়ার স্থানটি গুগল ম্যাপে দেখে শনাক্ত করা যায়।

আক্রান্ত ব্যক্তি একবার নির্দিষ্ট বাটন প্রেস করার মাধ্যমে যেভাবে প্রয়োজনীয় তথ্য পুলিশের কাছে পৌঁছে যাবে, তেমনি ছিনতাইকারীরা ওই ব্যক্তির হ্যান্ডসেট থেকে সিম পরিবর্তন করলেও নির্দিষ্ট সময় পরপর ছিনতাইকারীর অবস্থানের তথ্য নিকটস্থ পুলিশ স্টেশনের সার্ভারে আসতে থাকবে।

স্মার্টফোন ছাড়া সাধারণ ফিচার ফোনগুলোর জন্য সেটআপ টেক্সট অপশন থাকবে, যাতে করে টেক্সটটি নির্দিষ্ট এসএমএস সার্ভার নম্বরে মাধ্যমে পুলিশের সার্ভারে পৌঁছে যাবে। কিন্তু এ ক্ষেত্রে স্মার্টফোনের তুলনায় ফিচার ফোন ব্যবহারকারীরা একটু দেরিতে সেবা পাবেন।

অ্যাপটি ডেভেলপ করা হয়েছে অ্যানড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমের জন্য। এর পাশাপাশি উইন্ডোজ আর আইওএসের জন্যও অ্যাপটি ডেভেলপ করার কাজ চলছে।

অ্যাপটি জননিরাপত্তামূলক ও অপরাধ দমন-সংক্রান্ত হওয়ায় গুগল প্লে-স্টোর বা অন্যান্য মার্কেটপ্লেসে দিতে গেলে পুলিশ সদর দপ্তর বা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অনুমতির প্রয়োজন হয়। কারণ, অ্যাপটির মাধ্যমে ব্যবহারকারীরা প্রথমে পুলিশ বা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে জানাবে এবং বিপদগ্রস্ত ব্যক্তিটির সহায়তায় এগিয়ে আসবে।

এ জন্য পুলিশ সদর দপ্তর ও আইসিটি মন্ত্রণালয়ের অ্যাকসেস টু ইনফরমেশন প্রোগ্রাম (এটুআই) প্রকল্পে আবেদন করেছেন অ্যাপটির ডেভেলপার সাদ্দাম। সরকারের অনুমতি সাপেক্ষে।

Please follow and like us:

পাঠক গনন যন্ত্র

  • 4651771আজকের পাঠক সংখ্যা::
  • 5এখন আমাদের সাথে আছেন::

সর্বশেষ খবর

এ বিভাগের আরও খবর

প্রধান সম্পাদক- খোরশেদ আলম চৌধুরী, সম্পাদক- আশরাফুল ইসলাম জয়,  উপদেষ্টা সম্পাদক- নজরুল ইসলাম চৌধুরী।

প্রধান সম্পাদক কর্তৃক  প্রচারিত ও প্রকাশিত

ঢাকা অফিস : রোড # ১৩, নিকুঞ্জ - ২, খিলক্ষেত, ঢাকা-১২২৯,

সম্পাদক - ০১৫২১৩৬৯৭২৭,০১৮৮০৯২০৭১৩

Email-dailynayaalo@gmail.com নিউজ রুম।

Email-Cvnayaalo@gmail.com সিভি জমা।

 

 

সাইট উন্নয়নেঃ ICTSYLHET