১৪ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, সোমবার, ৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ৩রা জিলকদ, ১৪৪২ হিজরি

শিরোনামঃ-

ইউপি নির্বাচনে নিহত ১০০ ছাড়িয়েছে: সুজন

Khorshed Alam Chowdhury

আপডেট টাইম : মে ২৭ ২০১৬, ০০:৪০ | 648 বার পঠিত

চলমান ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে ‘শহীদি নির্বাচন’ বলে মন্তব্য করেছেন বিশিষ্ট কলামিষ্ট সৈয়দ আবুল মকসুদ।

আবুল মকসুদ বলেন, ‘আমার জীবনে কোন নির্বাচনে এত মানুষের প্রাণহানি হয়নি। ১৯৫২সালের ২১ ফেব্রুয়ারিতে মানুষ মারা গেছে চার জন আর এবার ইউপি নির্বাচনেই মানুষ মারাগেছে ১০০ জনের বেশি। তাই আমি বলবো এবারের নির্বাচন হলো শহীদি নির্বাচন।’

বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ মন্তব্য করেন।

দেশের চলমান নির্বচনে মনোনয়ন বাণিজ্য প্রসঙ্গে তিনি বলেন, নির্বাচনে মনোনয়ন বাণিজ্য আগে হতে শুনিনি। শুনেছি রমজানে ছোলা বাণিজ্য হয়। এখন দেখছি ছোলার মত মনোনয়ন ও ভোট ছোলার মত বেচা কেনা হয়।

তিনি বলেন, নির্বাচনী সহিংসতায় ১০০ জনের বেশি লোক মারা গেছেন। কিন্তু নির্বাচন কমিশন তা স্বীকার না না করে মনে করছে, এরা স্বাভাবিকভাবে মারা গেছেন।

নির্বাচন কমিশন যদি নীরব না থাকত তাহলে ১০০ জন মানুষ মারা যেত না বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

সুজন জানায়, এর আগে ১৯৮৮ সালের নির্বাচন সবচেয়ে বেশি সহিংসতাপূর্ণ ও প্রাণঘাতী ছিল। ওই নির্বাচনে ৮০ জনের প্রাণহানি হয়। ২০১১ সালে আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে ইউপি নির্বাচনে ১০ জনের প্রাণহানি হয়। ২০০৩ সালে বিএনপি সরকারের আমলে ২৩ জন মারা যায়।

সুজন বলছে, এইবারের নির্বাচনে এখন পর্যন্ত যে ১০১ জন মারা গেছেন, তাদের মধ্যে নির্বাচনপূর্ব সংঘর্ষে ৪৫ জন, ভোটের দিন সংঘর্ষে ৩৬ জন এবং ভোটের পর সংঘর্ষে ২০ জন মারা গেছেন।

নিহতদের মধ্যে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মী-সমর্থক ৪০ জন, আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীর কর্মী-সমর্থক ১২ জন, বিএনপির দুজন, জাতীয় পার্টির (জেপি) একজন, জনসংহতি সমিতির একজন এবং স্বতন্ত্র প্রার্থীর কর্মী দুজন নিহত হয়েছেন। বাকিদের মধ্যে সদস্য প্রার্থীর কর্মী-সমর্থক ৩১ জন, ১২ জন সাধারণ মানুষ। নিহতদের মধ্যে চারজন নারী ও তিনটি শিশু, একজন সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থী এবং তিনজন মেম্বর প্রার্থী ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, এই নির্বাচনে এখন পর্যন্ত বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আওয়ামী লীগের ২১১ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী নির্বাচিত হয়েছেন। এ ছাড়া বিএনপি ৫৫৪ ইউপিতে চেয়ারম্যান প্রার্থী দিতে পারেনি।

সুজন সম্পাদক বদিউল আমল মজুমদার বলেন, নির্বাচন যেন একটা দুঃস্বপ্নে পরিণত হয়েছে। যারা চোখে দেখে না, কানে শুনে না বা ইচ্ছা করে দেখতে চায় না বা শুনতে চায় না তারাই শুধু নির্বাচন কমিশনের পক্ষে কথা বলে।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সুজনের কেন্দ্রীয় সমন্বয়কারী দিলীপ কুমার সরকার।

এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন- সুজনের সহ সম্পাদক যাকারিয়া হোসেন, সুজনের নির্বাহী সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার মুজবা আলম প্রমুখ।

Please follow and like us:

পাঠক গনন যন্ত্র

  • 4572270আজকের পাঠক সংখ্যা::
  • 1এখন আমাদের সাথে আছেন::

সর্বশেষ খবর

এ বিভাগের আরও খবর

প্রধান সম্পাদক- খোরশেদ আলম চৌধুরী, সম্পাদক- আশরাফুল ইসলাম জয়,  উপদেষ্টা সম্পাদক- নজরুল ইসলাম চৌধুরী।

প্রধান সম্পাদক কর্তৃক  প্রচারিত ও প্রকাশিত

ঢাকা অফিস : রোড # ১৩, নিকুঞ্জ - ২, খিলক্ষেত, ঢাকা-১২২৯,

সম্পাদক - ০১৫২১৩৬৯৭২৭,০১৮৮০৯২০৭১৩

Email-dailynayaalo@gmail.com নিউজ রুম।

Email-Cvnayaalo@gmail.com সিভি জমা।

 

 

সাইট উন্নয়নেঃ ICTSYLHET