৩১শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, শনিবার, ১৬ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২০শে জিলহজ, ১৪৪২ হিজরি

শিরোনামঃ-

ইরা জঙ্গি নন, বিয়ে করে আত্মগোপনে ছিলেন

Khorshed Alam Chowdhury

আপডেট টাইম : জুলাই ২১ ২০১৬, ০১:২৮ | 665 বার পঠিত

25_13নয়া আলো- মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলার মাশুরগাঁও গ্রামের নুরুন্নাহার ইরা (১৮) পালিয়ে বিয়ে করে আত্মগোপনে ছিলেন। জঙ্গি সংগঠনের সঙ্গে তার যোগাযোগ নেই।

বুধবার দুপুরে শ্রীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সাহিদুর রহমান এ তথ্য জানান।

নুরুন্নাহার ইরা শ্রীনগর সরকারি কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্রী।

ইরা এক মাস ধরে নিখোঁজ থাকায় তার জঙ্গি সংশ্লিষ্টতার বিষয়ে মঙ্গলবার কয়েকটি সংবাদমাধ্যমে খবর প্রকাশ হলে এ নিয়ে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়।

কয়েক দিন আগে ইরা তার পরিবারের লোকজনকে ফোন করে জানান, তিনি পবিত্র স্থানে আছেন এবং ভালো আছেন। তাকে খোঁজাখুঁজি করে লাভ নেই। এ তথ্যের ভিত্তিতে সংবাদ মাধ্যমগুলো তার জঙ্গি সম্পৃক্ততার সংবাদ পরিবেশন করে। এতে নড়েচড়ে বসে পুলিশ। কিন্তু সবাইকে অবাক করে দিয়ে মঙ্গলবার বিকেল ৫টার দিকে ইরা স্বেচ্ছায় শ্রীনগর থানায় হাজির হন। তার জন্য কেউ যেন হয়রানির শিকার না হন, সেজন্য একটি সাধারণ ডায়েরি করার কথা বলেন। পরিচয় জানতে পেরে পুলিশ তাকে আটক করে।

মঙ্গলবার সকালে ইরার বাবা ইয়াকুব আলী ও মা শামীমা বেগম কয়েকটি টিভি চ্যানেল ও অনলাইন নিউজ পোর্টালের সাংবাদিকদের কাছে শঙ্কা প্রকাশ করে বলেন, তাদের মেয়ে বিদেশে জঙ্গি মিশনে যেতেই বাড়ি ছেড়েছেন। মুঠোফোন কলের পর তাদের এ ধারণা আরো পোক্ত হয়েছে। তাছাড়া নিখোঁজের কিছু দিন আগে তিনি বাড়িতে ধর্মীয় বই পড়তে এবং বোরখা পরতে শুরু করেন। গত ১৯ জুন বাড়ি থেকে বের হয়ে আর ফিরে আসেননি ইরা। এর ২০ দিন পর গত ১০ জুলাই তার মা শামীমা বেগম শ্রীনগর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন। থানায় জিডি করার পর পুলিশ তাদের বাসা থেকে দুটি ধর্মীয় বই উদ্ধার করে।

জেলার সহকারী পুলিশ সুপার (শ্রীনগর সার্কেল) মো. সামসুজ্জামান বাবু জানান, জব্দ করা বইগুলো ধর্মীয় বই।

ইরার বাবার দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, শ্রীনগরের সমষপুর বিজনেস ম্যানেজমেন্ট স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে ২০১৫ সালে এসএসসি পাস করেন ইরা। পরে শ্রীনগর সরকারি কলেজে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি হন। ১৯ জুন কলেজে যাওয়ার কথা বলে বাড়ি থেকে বের হয়েছিলেন ইরা। এর পর আর ফেরেননি।

শ্রীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সাহিদুর রহমান আরো জানান, সিরাজুল ইসলাম নয়ন (৩৫) নামের এক যুবককে গোপনে বিয়ে করেন ইরা। নয়ন পাবনার বর্জনাথপুর গ্রামের আব্দুল হামিদের ছেলে। নয়ন বর্তমানে সমষপুর বিজনেস ম্যানেজমেন্ট স্কুল অ্যান্ড কলেজের পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি ফজলুল হক হান্নুর মালিকানাধীন ঢাকার গুলশান-২ এর ৭২ নম্বর সড়কের ১৫ নং বাড়িতে অবস্থিত আহামেদ গ্রুপে কর্মরত। তাকে ২০১৫ সালে সমষপুর বিজনেস ম্যানেজমেন্ট স্কুল অ্যান্ড কলেজে শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ করা হয়েছিল। ওই বছর এসএসসি পরীক্ষার আগে তিনি ইরাসহ আরো কয়েক জনের গাইড হিসেবে তিন মাস নিযুক্ত ছিলেন।

মঙ্গলবার দুপুর ২টার দিকে পুলিশ নয়নকে শ্রীনগর থানায় হাজির করার জন্য আহমেদ গ্রুপের কর্ণধারকে অনুরোধ করে। এতে সাড়া দিয়ে নয়নকে নিজ প্রতিষ্ঠানের গাড়িতে করে তার কয়েকজন সহকর্মীসহ গুলশান থেকে শ্রীনগর পাঠানো হয়। এ খবরে ইরা স্বেচ্ছায় থানায় এসে হাজির হন এবং তার জন্য অন্য কাউকে হয়রানি না করতে অনুরোধ করেন।

শ্রীনগর থানার ওসি জানান, এক মাস কোথায় ছিলেন, এ বিষয়ে বিভ্রান্তিকর তথ্য দিচ্ছেন ইরা। তার বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। জিঞ্জাসাবাদ শেষে ইরাকে বৃহস্পতিবার দুপুরে মুন্সীগঞ্জ জেলা আদালতে পাঠানো হবে।

Please follow and like us:

পাঠক গনন যন্ত্র

  • 4657897আজকের পাঠক সংখ্যা::
  • 1এখন আমাদের সাথে আছেন::

সর্বশেষ খবর

এ বিভাগের আরও খবর

প্রধান সম্পাদক- খোরশেদ আলম চৌধুরী, সম্পাদক- আশরাফুল ইসলাম জয়,  উপদেষ্টা সম্পাদক- নজরুল ইসলাম চৌধুরী।

প্রধান সম্পাদক কর্তৃক  প্রচারিত ও প্রকাশিত

ঢাকা অফিস : রোড # ১৩, নিকুঞ্জ - ২, খিলক্ষেত, ঢাকা-১২২৯,

সম্পাদক - ০১৫২১৩৬৯৭২৭,০১৮৮০৯২০৭১৩

Email-dailynayaalo@gmail.com নিউজ রুম।

Email-Cvnayaalo@gmail.com সিভি জমা।

 

 

সাইট উন্নয়নেঃ ICTSYLHET