১৬ই অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, শনিবার, ৩১শে আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ৯ই রবিউল আউয়াল, ১৪৪৩ হিজরি

শিরোনামঃ-
  • হোম
  • খুলনা
  • খুলনা-মংলা রেল লাইন নির্মান কাজের উদ্বোধন খুব শিগগিরি

খুলনা-মংলা রেল লাইন নির্মান কাজের উদ্বোধন খুব শিগগিরি

প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

আপডেট টাইম : সেপ্টেম্বর ২৭ ২০১৬, ১২:৩১ | 728 বার পঠিত

মেহেদী হাসান,খুলনা।-খুলছে খুলনাঞ্চলের বাণিজ্য দুয়ার। মংলা বন্দর ফুলে ফলে সুশোভিত হবে এমন প্রায়স চলছে। নেপাল ও ভুট্রান মংলা বন্দর ব্যবহারের মাধ্যমে রেলযোগে পন্য আমদানী ও রপ্তানী করতে পারবে। সে ল্েয আগামী দু’মাসের মধ্যে ভারত বাংলাদেশের যৌথ বিনিয়োগে খুলনা-মংলা রেল লাইন নির্মান কাজের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন হচ্ছে। শিগগিরি ভূমি অধিগ্রহনের কাজ শেষ হলে প্রকল্পের জমি ন্যাস্ত হবে রেলওয়ের কাছে। অন্যদিকে দ্রুত গতিতে চলছে পদ্মা সেতুর নির্মান কাজ। খুলনার বটিয়াঘাটা ও তেরখাদার দু’টি এলাকাকে অর্থনৈতিক জোন হিসেবে ঘোষণা করেছে জেলা প্রশাসন। সে ল্েয কাজও চলছে দ্রুত। সব মিলিয়ে মংলাকে গতিশীল করার মানসে সরকার বাস্তবমুখী প্রকল্পগুলো অগ্রাধিকার ভিত্তিতে তরান্বিত করছে।
সূত্রমতে, মংলা বন্দরের মালামাল যাতে চট্রগ্রামের মত সহজে এবং দ্রুতার সাথে রাজধানী সহ বিভিন্ন স্থানে পৌছে যায় সে ল্েয খুলনা থেকে মংলা পর্যন্ত নতুন রেললাইন নির্মান কাজ চলতি বছরেই আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হবে। খুলনা মংলা রেল লাইন প্রকল্পের কাজ যাতে যথাসময়ে সমাপ্ত হয় সেদিকে ল্য রেখে প্রকল্পকে ৩ ভাগে ভাগ করা হয়েছে। একটি কাজ করতে গিয়ে অন্যটির যাতে কোন তি না হয় কিম্বা অযথা সময় পেন না হয় সে দিকটি মাথায় রেখেছে প্রকৌশলীরা। রেল সেতু, রেল লাইন এবং টেলিকমিউনিকেশন ও সিগন্যালিং এই তিন ভাগে বিভক্ত করে প্রায় ৭৫০ একর জমি অধিগ্রহণ করা হচ্ছে। শুধুমাত্র খুলনা থেকেই ৪০১ একর জমি অধিগ্রহণ করা হচ্ছে। এছাড়া মংলা বন্দর কর্তৃপরে ৭৩ একর এবং বাগেরহাট জেলা থেকে ২৭৫ একর জমি অধিগ্রহণ করা হবে। এই প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে খুলনা মহানগরীর যানজট অনেকাংশে কমে যাবে। পাশাপাশি যখন পদ্মা সেতুর সফল বাস্তবায়ন হবে তখন এই রেললাইনকে ঘিরে এ অঞ্চল হয়ে উঠবে গুরুত্বপূর্ন ইকনোমিক জোন। এখন যে পরিমান রাজস্ব মংলা বন্দর থেকে পাওয়া যাচ্ছে ভবিষ্যতে তার পরিমান অনেকাংশে বৃদ্ধি পাবে। এছাড়া যশোর পর্যন্ত রেল লাইন স্থাপনের মাধ্যমে খুলনার সাথে সরাসরি রেল যোগাযোগ সংযুক্ত হবে। পদ্মা সেতু আর খুলনা- মংলা রেল লাইন হবে এ অঞ্চলের অর্থনৈতিক স্বর্ণ দুয়ার রচনার েেত্র এক বিশেষ মাইল ফলক। ফুলতলা থেকে মংলা পর্যন্ত ৬৪.৭৫ কি:মি: লম্বা রেল লাইনটি নির্মানের েেত্র নির্মান ব্যয় ধরা হয়েছে ৩ হাজার ৮শ’ ১ কোটি ৬১ লাখ ৮০ হাজার টাকা। প্রকল্পের বিপরীতে ভারত থেকে ঋণ পাওয়া যাবে ২ হাজার ৩শ’ ৭১ কোটি ৩৪ লাখ ৯০ হাজার টাকা। আর বাংলাদেশ সরকার এ প্রকল্পে ব্যয় করবে ১ হাজার ৪শ’ ৩০ কোটি ২৬ লাখ ৩০ হাজার টাকা।
এদিকে, এক সময়কার শিল্প ও বন্দর নগরী বলে খ্যাত খুলনার জৌলুষ ফিরিয়ে আনতে খুলনায় দু’টি অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলার উদ্যোগ নিয়েছে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপ (বেজা)। বিশেষজ্ঞরা বলছেন এ দু’টি অর্থনৈতিক অঞ্চল পরিকল্পিতভাবে পরিচালিত করতে পারলে তা আঞ্চলিক ও জাতীয় অর্থনীতিতে গুরুত্বপুর্ন ভূমিকা রাখবে। বেজা এ ল্েয খুলনার বটিয়াঘাটার তেতুলতলা এবং তেরখাদার কোলাকে বেছে নিয়েছে। রপ্তানি আয় বৃদ্ধি এবং নতুন বিনিয়োগ ছাড়াও এই অঞ্চলে কর্মসংস্থান সৃষ্টিতেও বিশেষ ভূমিকা রাখবে। আর এর সাথে যুক্ত হবে আর্শীবাদ হিসেবে পদ্মা সেতু।
অপরদিকে, বৃহত্তর খুলনঞ্চলের মানুষ তাদের পড়তি ব্যবসা পুনরুদ্ধারে চেয়ে আছে পদ্মা সেতু, খুলনা-মংলা রেল লাইন চালু ও খুলনার দু’টি অর্থনৈতিক জোনের সফল বাস্তবায়নের দিকে। ইতোমধ্যে ভারতের নির্মান প্রতিষ্ঠান ইরকন ইন্টারন্যাশনাল লি: এর সঙ্গে বাংলাদেশ রেলওয়ের নির্মান চুক্তি স্বার হয়েছে। এই প্রকল্পে ৮টি ষ্টেশন থাকবে। এছাড়া রেললাইনের পাশাপাশি ২১ কি:মি: লুপ লাইন নির্মান করা হবে। কাজ শুরু ৪২ মাসের মধ্যে নির্মান কাজ শেষ হবে। এ প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে খুলনাঞ্চলের ৭টি রাষ্ট্রায়ত্ব পাটকলের হারানো যৌবন ফিরে পাবে। গতিশীল হবে এ অঞ্চলের সরকারী বেসরকারী পাটকল ও অন্যান্য শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলো। ফলে চাঙ্গা হবে এ অঞ্চলের ভঙ্গুর অর্থনীতি।
বৃহত্তর খুলনা উন্নয়ন সমন্বয় সংগ্রাম কমিটির সভাপতি শেখ আশরাফ উজ জামান বলেন, অবহেলিত খুলনাঞ্চলের মানুষ অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বি করতে সরকারের এই প্রায়স আমাদেরই আন্দোলনের ফসল। দণি পশ্চিমাঞ্চলের উন্নয়নের েেত্র এ প্রকল্পগুলো দ্রুত বাস্তবায়ন এখন সময়ের দাবিতে পরিনত হয়েছে। মংলা বন্দরকে গতিশীল করার দায়িত্ব এ অঞ্চলের আমজনতার। প্রকল্পগুলো যাতে যথা সময়ে বাস্তবায়িত হয় সেজন্য প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

Please follow and like us:

পাঠক গনন যন্ত্র

  • 4751349আজকের পাঠক সংখ্যা::
  • 1এখন আমাদের সাথে আছেন::

সর্বশেষ খবর

এ বিভাগের আরও খবর

প্রধান সম্পাদক- খোরশেদ আলম চৌধুরী, সম্পাদক- আশরাফুল ইসলাম জয়,  উপদেষ্টা সম্পাদক- নজরুল ইসলাম চৌধুরী।

প্রধান সম্পাদক কর্তৃক  প্রচারিত ও প্রকাশিত

ঢাকা অফিস : রোড # ১৩, নিকুঞ্জ - ২, খিলক্ষেত, ঢাকা-১২২৯,

সম্পাদক - ০১৫২১৩৬৯৭২৭,০১৮৮০৯২০৭১৩

Email-dailynayaalo@gmail.com নিউজ রুম।

Email-Cvnayaalo@gmail.com সিভি জমা।

 

 

সাইট উন্নয়নেঃ ICTSYLHET