২৫শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, রবিবার, ১০ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৪ই জিলহজ, ১৪৪২ হিজরি

শিরোনামঃ-
  • হোম
  • সকল সংবাদ
  • চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদায় পাওনা টাকার জন্য মহিলাকে গাছে বেঁধে নির্যাতন

চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদায় পাওনা টাকার জন্য মহিলাকে গাছে বেঁধে নির্যাতন

Khorshed Alam Chowdhury

আপডেট টাইম : আগস্ট ২০ ২০১৬, ২১:৩৪ | 630 বার পঠিত

146262_168সাদ্দাম হোসেন,চুয়াডাঙ্গা থেকে- চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার কার্পাসডাঙ্গা গ্রামে পাওনা টাকা আদায় করার নামে এক মহিলাকে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, নিজ বাড়ি থেকে ধরে এনে সেলিনা বেগম নামের ওই মহিলাকে নারিকেল গাছের সাথে রশি দিয়ে বেঁধে রেখে অমানুষিকভাবে নির্যাতন করেছে পাওনাদার রাবেয়া বেগম ও তার লোকজন। ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার সকাল ৯টার দিকে।

নির্যাতনের দৃশ্য দেখতে শত শত পুরুষ-মহিলা ভিড় জমালেও কেউ প্রতিবাদ করার সাহস পায়নি। এ ঘটনার জেরে নির্যাতিতা সেলিনার বড় ভাই আসান আলী আজ শুক্রবার বেলা ১১টার সময় দামুড়হুদা মডেল থানায় নির্যাতনকারী সোনাহার খাতুন ও তার স্বামী শহিদুল ইসলামের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত ৪/৫ জনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করে। পরে বেলা সাড়ে ১২টার দিকে সোনাহার খাতুনকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

ঘটনাস্থল সরেজমিন পরিদর্শনে জানা যায়, দামুড়হুদা উপজেলার কার্পাসডাঙ্গা কলোনিপাড়ার নঈম উদ্দীনের স্ত্রী রাবেয়া বেগম (৬০) একই পাড়ার আব্দুর রাজ্জাকের স্ত্রী দুই সন্তানের জননী সেলিনা বেগমের (২৮) কাছে ৯০ হাজার টাকা সুদে ধার দেয়। ৫-৬ বছর হয়ে গেলেও টাকা ফেরৎ দিতে না পারায় গ্রাম্য সালিশ ডাকেন রাবেয়া বেগম। সালিশে সিদ্ধান্ত মোতাবেক ৬৫ হাজার টাকায় রফা হয়।

নির্যাতিতা সেলিনা বেগম বলেন, ৬৫ হাজার টাকার মধ্য থেকে ৪০ হাজার টাকা এনজিওর মাধ্যমে লোন নিয়ে তাকে পরিশোধ করেছি, যার কিস্তি চালিয়েছি এবং নগদ ২৫ হাজার টাকা দিয়েছি। এখন আবার নতুন করে ২৫ হাজার টাকা দাবি করছে। এ টাকা দিতে না পারায় গতকাল সকাল ৯টার দিকে রাবেয়া বেগম ও তার মেয়ে সোনাহার খাতুন আমাকে বাড়ি থেকে জোরপূর্বক ধরে এনে তাদের বাড়ির উঠানে নারিকেল গাছের সাথে মোটা রশি দিয়ে বেঁধে রেখে নির্যাতন চালায়।

এ সময় প্রতিবেদক ঘটনাস্থলে ছবি তুলতে গেলে রাবেয়া বেগম তার সামনেই নির্যাতিতা সেলিনা বেগমকে গালিগালাজ ও কিলঘুষি মারতে থাকে। এ সময় সেলিনার দুই সন্তানকে মায়ের সামনে কান্নাকাটি করতে দেখা যায়। অমানুষিক এ নির্যাতনে দেখতে শত শত পুরুষ ও মহিলা উপস্থিত হলেও বেপরোয়া রাবেয়া বেগম ও তার লোকজনের ভয়ে কেউ তাকে রক্ষা করতে সাহস পায়নি।

দামুড়হুদা মডেল থানার ওসি আবু জিহাদ ফকরুল ইসলাম জানান, ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে সোনাহার খাতুনকে আটক করা হয়েছে এবং বাকিদেরকে আটক করতে পুলিশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

 

Please follow and like us:

পাঠক গনন যন্ত্র

  • 4645607আজকের পাঠক সংখ্যা::
  • 2এখন আমাদের সাথে আছেন::

সর্বশেষ খবর

এ বিভাগের আরও খবর

প্রধান সম্পাদক- খোরশেদ আলম চৌধুরী, সম্পাদক- আশরাফুল ইসলাম জয়,  উপদেষ্টা সম্পাদক- নজরুল ইসলাম চৌধুরী।

প্রধান সম্পাদক কর্তৃক  প্রচারিত ও প্রকাশিত

ঢাকা অফিস : রোড # ১৩, নিকুঞ্জ - ২, খিলক্ষেত, ঢাকা-১২২৯,

সম্পাদক - ০১৫২১৩৬৯৭২৭,০১৮৮০৯২০৭১৩

Email-dailynayaalo@gmail.com নিউজ রুম।

Email-Cvnayaalo@gmail.com সিভি জমা।

 

 

সাইট উন্নয়নেঃ ICTSYLHET