২রা মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, মঙ্গলবার, ১৭ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১৭ই রজব, ১৪৪২ হিজরি

শিরোনামঃ-
  • হোম
  • শিক্ষা
  • দীর্ঘ ৩ যুগ যাবৎ পাঠাগারের মাধ্যমে  জ্ঞানের আলো ছড়াচ্ছেন মাস্টার আবুল কালাম আজাদ

দীর্ঘ ৩ যুগ যাবৎ পাঠাগারের মাধ্যমে  জ্ঞানের আলো ছড়াচ্ছেন মাস্টার আবুল কালাম আজাদ

হুমায়ন আরাফাত, আশুলিয়া করেসপন্ডেন্ট।

আপডেট টাইম : জুন ০৬ ২০১৭, ১২:২৯ | 665 বার পঠিত

নজরুল ইসলাম চৌধুরীঃ

দীর্ঘ ৩৫ বছর যাবৎ একটি পাঠাগার স্থাপনের মাধ্যমে জ্ঞানের আলো ছড়াচ্ছেন এক স্কুল শিক্ষক। এ পাঠাগারটির পেছনে নিরলস শ্রম দিয়ে প্রতিষ্ঠিত করেছেন ফেনী জেলার ছাগলনাইয়া পৌরসভার অন্তর্গত  ছাগলনাইয়া গণপাঠাগার। বই প্রেমিক এ ব্যক্তি পেশায় ছিলেন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক। ছাগলনাইয়া গণপাঠারই যেন তাঁর পরিবার। সে মহান ব্যক্তি মাস্টার আবুল কালাম আজাদ। বয়স ৬৫ বছর। ছাগলনাইয়া পৌরসভার পশ্চিম ছাগলনাইয়া মিজী বাড়ীর মরহুম মাস্টার গোলাম মোস্তফার বড় ছেলে। ১৯৮২ সালে শুরু করেন  এ ছাগলনাইয়া গণপাঠাগার নামক পাঠাগারের বই পড়া কার্যক্রম। পাঠাগারটির বর্তমান সাধারণ সম্পাদক মাস্টার আবুল কালাম আজাদ যখন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করে মাসিক বেতন পেতেন ৩ হাজার টাকা তখন সে বেতনের টাকা থেকেই পাঠাগারের ঘর ভাড়া ও অন্যান্য খরচের জন্য ১৫শ টাকা খরচ করতেন। তিনি ১৯৮২ সালে ৪৫ জন সদস্য নিয়ে শুরু করেন ছাগলনাইয়া গণপাঠাগারের কার্যক্রম। বর্তমানে এ পাঠাগারের সদস্য সংখ্যা প্রায় ৩’শ। ১৯৮২ সালে এ পাঠাগারের আহবায়ক কমিটিতে তিনি ছিলেন যুগ্ন আহবায়ক এর তিন মাস পর পুর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হয় এবং সে কমিটিতে মাস্টার আবুল কালাম আজাদকে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচন করা  হয়। সেই থেকে দীর্ঘ ৩৫ বছর তিনি এ পাঠাগারের জন্য স্বেচ্ছা শ্রমে, নিজের পকেটের টাকা খরচ করে নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন। ২০১১ সালে  এ মহান ব্যক্তি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চাকুরী থেকে অবসর গ্রহন করলেও যখন তিনি চাকুরীরত ছিলেন তখনও স্কুল ছুটির পর পাঠাগারেই সময় দিতেন। বর্তমানে সকাল, বিকেল এবং রাত সারাক্ষণ তিনি এ পাঠাগারের সমৃদ্ধির লক্ষে কাজ করে যাচ্ছেন। স্কুল, কলেজ পড়ুয়া ছাত্রদের বিভিন্ন বই দিচ্ছেন এবং নিচ্ছেন। শুধু পাঠাগারে নয় মানুষকে বই পড়তে আগ্রহী করে তুলতে তিনি বাড়ি বাড়ি গিয়ে বই দিয়ে ও নিয়ে আসেন। ১৯৮২ সালে মাস্টার সেলিম নামক এক ব্যক্তির নিকট থেকে ৭৩ টি বই নেন এই পাঠাগারের জন্য বর্তমানে এ পাঠাগারে বই সংখ্যা  ১০ হাজারেরও অধিক। বিভিন্ন ম্যাগাজিন বই আছে ৩ শতাধিক। মাস্টার আবুল কালাম আজাদ একা একা নয় তিনি তার সাথে রেখেছেন এলাকার কিছু শিক্ষিত  যুবক এবং সমবয়সী লোক। সবার  ঐকান্তিক চেষ্টায় এ পাঠাগারটি দিন দিন উন্নতি লাভ করতে থাকে। দীর্ঘ বছর এ পাঠাগারটি অন্যের ঘরে ভাড়ায় নেওয়া ছিলো। অবশেষে মাস্টার আবুল কালাম আজাদ সকলের অসহযোগীতায় নিজস্ব ভবনে পাঠাগারটি স্থাপনের স্বপ্ন বুনেন। এদিক ওদিক ঘুরে পাঠাগারের অবকাঠামো নির্মানের জন্য পরিচিত লোকদের নিকট থেকে অর্থ জোগাড় করেন। ২০০৭ সালের ১৪ আগস্ট ছাগলনাইয়া আবদুর রাজ্জাক সড়কস্থ থানা পাড়ায় ছাগলনাইয়া গণপাঠাগারের নিজস্ব ভবনে পাঠাগারের কার্যক্রম শুরু করেন তিনি। এখন পাঠাগারের বইয়ের হিসাব আর খাতায় লিখতে চাননা তিনি। পাঠাগারের সকল হিসাব নিজ উদ্যোগে কম্পিউটারইজ করছেন। পাঠাগারের জন্য ব্যবস্থা করেছেন প্রোজেক্টর। পাঠাগার প্রেমি এ ব্যক্তি দীর্ঘ ৩৫ বছর ছাগলনাইয়া গণপাঠাগারকেই নিজের পরিবার মনে করে সেবা করে যাচ্ছেন। এমন একজন গুনি  মানুষকে সম্মাননা দিতে চায় অনেকে। সম্প্রতি নারায়ণগঞ্জের সুধীজন পাঠাগার কর্তৃক মাস্টার আবুল কালাম আজাদকে পাঠাগারের মাধ্যমে জ্ঞানের আলো ছড়ানোরজন্য “হোসেন জামাল” পুরস্কার প্রদান করা হয়। পুরস্কার হিসেবে দেওয়া হয় সম্মাননা সনদ ও ৫০ হাজার টাকা।

Please follow and like us:

পাঠক গনন যন্ত্র

  • 4395063আজকের পাঠক সংখ্যা::
  • 8এখন আমাদের সাথে আছেন::

সর্বশেষ খবর

এ বিভাগের আরও খবর

প্রধান সম্পাদক- খোরশেদ আলম চৌধুরী, সম্পাদক- আশরাফুল ইসলাম জয়,  উপদেষ্টা সম্পাদক- নজরুল ইসলাম চৌধুরী।

ঢাকা অফিস : রোড # ১৩, নিকুঞ্জ - ২, খিলক্ষেত, ঢাকা-১২২৯,

সম্পাদক - ০১৫২১৩৬৯৭২৭,০১৮৮০৯২০৭১৩

Email-dailynayaalo@gmail.com

প্রধান সম্পাদক কর্তৃক  প্রচারিত ও প্রকাশিত

সাইট উন্নয়নেঃ ICTSYLHET