২২শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, শনিবার, ৮ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৫ই জিলহজ, ১৪৪৫ হিজরি

শিরোনামঃ-




নরসিংদীতে লটকনে আগ্রহ বাড়ছে চাষিদের

শফিকুল ইসলাম. তাড়াশ,সিরাজগঞ্জ ,করেসপন্ডেন্ট।

আপডেট টাইম : জুন ২৮ ২০২২, ১৬:১৫ | 789 বার পঠিত | প্রিন্ট / ইপেপার প্রিন্ট / ইপেপার

নরসিংদীতে লটকন চাষ করে ব্যাপক সাফল্য পাচ্ছেন চাষিরাআর্থিক লাভের কারণে চাষিদের মধ্যে লটকন চাষে উৎসাহের পাশাপাশি প্রতি বছরই এখানে বাড়ছে বাগানের সংখ্যাবর্তমানে নরসিংদীর উত্তরউত্তর-পশ্চিমের সমতল পাহাড়ি লালমাটি এলাকা থেকে প্রতিদিন শত শত মণ লটকন ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন শহরে যাচ্ছে

নরসিংদী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের অতিরিক্ত উপপরিচালক ড. সাফায়েত আহম্মদ জানান, এ বছর নরসিংদী জেলায় প্রায়

এক হাজার ৩৬৯ হেক্টর জমিতে লনকট চাষ হয়েছেএগুলোর মধ্যে বেলাবতে -১২৩ হেক্টর, শিবপুরে-১২০০ হেক্টর, মনোহরদীতে-১০ হেক্টর, রায়পুরায়-৩১ হেক্টর ও পলাশে-৫ হেক্টরমওসুমে এখানে প্রায় ১৫ হাজার মেট্রিক টন লটকন উৎপাদন হয়, যার আনুমানিক দাম ৪০-৪৫ কোটি টাকাচাষিরা জানান, লটকন উচ্চ সমতল সব ধরনের জমিতেই জন্মেএক সময়ের পরিত্যক্ত ভূমি এখন লটকন চাষ করে তার যথাযথ ব্যবহার হচ্ছে

আগে গ্রামে-গ্রামান্তরের কোনো কোনো বাড়িতে কদাচিলটকন গাছ দেখা যেতচাহিদা তেমন ছিল না বলে কেউ এটিকে বাণিজ্যিকভাবে উৎপাদনের কথা চিন্তা করত নামানুষের সচেতনতা বৃদ্ধির ফলে প্রচুর ক্যালোরি, খাদ্যপুষ্টিগুণ সমৃব্ধফলের চাহিদা বহুগুণে বৃদ্ধি পেয়েছেএকই সাথে বৃদ্ধি পেয়েছে ফলের মূল্যওমাটিজাতগুণে লটকনের মধ্যে টকমিষ্টি দুই প্রকারেই পাওয়া যায়তবে অধিক মিষ্টিসামান্য টক স্বাদের লটকনের চাহিদা বেশি

নরসিংদীর উত্তরউত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের সুউচ্চ গৈরিক বা লাল রঙের মাটিতে প্রচুর ক্যালসিয়ামঅন্যান্য খনিজ উপাদান বিদ্যমান থাকায়মাটিতে লটকনের উৎপাদন ভালো হচ্ছেস্বাদে-গন্ধে হচ্ছে মিষ্টি এবং আকৃতিতেও হচ্ছে বড় বড়নরসিংদীর রায়পুরা, শিবপুর, বেলাব, মনোহরদীপলাশ উপজেলার শত শত চাষি বর্তমানে লটকন বিক্রি করে অর্থনৈতিক সাফল্য ফিরিয়ে আনছেনসরেজমিন দেখা গেছে, শিবপুর উপজেলায় সবচেয়ে বেশি লটকনের বাগান রয়েছে। ২০ বছর আগেও লটকনের স্বতন্ত্র বাগান ছিল নাতখন অন্যান্য ফলগাছের সাথেই দু-একটি গাছ লাগানো হতোলটকন চাষিরা জানান, পূর্বসময়ে লটকনের তেমন চাহিদা ছিল না, দামও ছিল কম, সে কারণে কেউ লটকনের স্বতন্ত্র বাগান করার চিন্তা করত না

বর্তমানে চাহিদামূল্য দু’টিই বেড়েছেঅন্যান্য ফলের চেয়ে লটকনের ফলন অনেক বেশি হয় বলে কৃষকেরাও অধিক লাভবান হচ্ছেনলটকন গাছের কাণ্ডে এবং ডালপালায় ফলেগাছের পুষ্টির সুষমতাআবহাওয়া অনুকূলে থাকলে গাছের গোড়া থেকে প্রধান কাণ্ডগুলোতে থোকায় থোকায় এত বেশি ফল আসে যে, তখন গাছের কাণ্ড বা ডাল দেখা যায় নাবেলাব উপজেলার লাকপুর গ্রামের লটকন চাষি নুরুর হাছান জানান, এ বছর তিনি লটকন বিক্রি করে ১৬ লাখ টাকা পেয়েছেনলটকন বিক্রির ভাবনা এখন তাদেরকে ভাবতে হচ্ছে না

স্থানীয় পাইকারেরা বাগান থেকে প্রতি মণ লটকন দু-হাজার থেকে আড়াই হাজার দরে কিনে নিচ্ছেতা ছাড়া শিবপুরমরজাল বাজার থেকে প্রতিদিন দেশের বিভিন্ন স্থানের পাইকারি ক্রেতারা এসে লটকন কিনে নিয়ে যাচ্ছেনএখানকার উৎপাদিত শত শত মণ লটকন চাহিদা মেটাচ্ছে রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জেলারস্থানীয় ব্যবসায়ী মিষ্টার মিয়া জানান, প্রতি কেজি লটকন তারা ঢাকায় নিয়ে ৯০ থেকে ১০০ টাকা পর্যন্ত বিক্রি করে থাকেনস্থানীয় লাকপুর

উচ্চবিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকলটকন চাষি জাহাঙ্গীর আলম জানান, লটকন গাছে নারী-পুরুষ রয়েছেফল আসার আগ পর্যন্ত নারী-পুরুষ চিহ্নিত করা দুষ্কর

চারা লাগানোর কমপক্ষে পাঁচ বছর পর ফল আসেপ্রথম দিকে চাষিরা চারার জন্য নার্সারিগুলোর ওপর নির্ভর করলেও এখন তা করছেন নাএখন নিজেরাই চারা তৈরি করছেনবহু অভিজ্ঞতার আলোকে দেখা গেছে এবং এক বিচি বিশিষ্ট লটকটন থেকে অধিক নারী গাছের জন্ম নেয়তা ছাড়া চারা অবস্থায় গাছের বিভিন্ন লক্ষণ দেখে অভিজ্ঞরা নারী চারা শনাক্ত করতে পারেনবাছাইয়েরপদ্ধতি বিজ্ঞানসম্মত না হলেও চাষিরা বেশ সাফল্য পাচ্ছেনদেখা গেছে, বাগানগুলোতে নির্দিষ্ট দূরত্বে তিনটি করে চারা রোপণ করা হচ্ছেপাঁচ বছর পর প্রথম ফল এলে নারী গাছ রেখে বাকিগুলো কেটে ফেলা হচ্ছেএকটি পূর্ণবয়স্ক লটকন গাছেথেকে ১০ মণ পর্যন্ত ফলন পাওয়া যায় ফলে সাধারণত এত টাকা আয় হয় নালটকন চাষে রোগ বালাই তেমন একটা নেইচাহিদাও প্রচুর, এসব কারণেই দিন দিন নরসিংদীর বিভিন্ন এলাকায় লটকন চাষের প্রসার ঘটছে। এ ছাড়া দেশের পাশাপশি মধ্যপ্রাচ্যইউরোপে এখানকার লটকনের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে#

Please follow and like us:

সর্বশেষ খবর

এ বিভাগের আরও খবর

প্রধান সম্পাদক- খোরশেদ আলম চৌধুরী, সম্পাদক- আশরাফুল ইসলাম জয়,  উপদেষ্টা সম্পাদক- নজরুল ইসলাম চৌধুরী।

প্রধান সম্পাদক কর্তৃক  প্রচারিত ও প্রকাশিত

ঢাকা অফিস : রোড # ১৩, নিকুঞ্জ - ২, খিলক্ষেত, ঢাকা-১২২৯,

সম্পাদক - ০১৫২১৩৬৯৭২৭,০১৬০১৯২০৭১৩

Email-dailynayaalo@gmail.com নিউজ রুম।

Email-Cvnayaalo@gmail.com সিভি জমা।

 

 

সাইট উন্নয়নেঃ ICTSYLHET