১৫ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, বৃহস্পতিবার, ২রা বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২রা রমজান, ১৪৪২ হিজরি

শিরোনামঃ-
  • হোম
  • বিশেষ প্রতিবেদন
  • নড়াইলে,সবার কাছে ছিলেন ভিক্ষুক,এখন আর কেউ তাঁকে ভিক্ষুক বলেন না এখন আর তাঁরা ভিক্ষুক নন

নড়াইলে,সবার কাছে ছিলেন ভিক্ষুক,এখন আর কেউ তাঁকে ভিক্ষুক বলেন না এখন আর তাঁরা ভিক্ষুক নন

প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

আপডেট টাইম : অক্টোবর ২০ ২০১৬, ১৭:৫৫ | 644 বার পঠিত

উজ্জ্বল রায়, নড়াইল জেলা প্রতিনিধি :-

নড়াইলে ভিক্ষাবৃত্তি ছেড়ে দিয়েছে শারীরিক প্রতিবন্ধী আবু তালেব এখন দোকারেন মালিক। গত বুধবার  আগে দ্বারে দ্বারে গিয়ে হাত পেতে সংসার চালাতেন জামশেদ শেখ। সবার কাছে তিনি ছিলেন ভিক্ষুক। এখন আর কেউ তাঁকে ভিক্ষুক বলেন না। সদর উপজেলার শাহাবাদ গ্রামের বাসিন্দা জামশেদ (৪৬) বলেন, ‘ভিক্ষাবৃত্তি ছেড়ে দিয়েছি। কোমরে মোটা বেল্ট লাগিয়ে এখন ভ্যান চালাই। আমাকে এখন সবাই ভ্যানচালক বলে ডাকে। শুনতেও ভালো লাগে।’ আমাদের নড়াইল জেলা প্রতিনিধি উজ্জ্বল রায়ের পাঠানো তথ্যর ভিতিতে জানা যায়‘ ১০ বছর আগে সড়ক দুর্ঘটনায় কোমরে চোট পেয়েছিলেন জামশেদ। কাজকর্ম কিছুই করতে পারতেন না। সংসার চালাতে বেছে নেন ভিক্ষাবৃত্তি। সেই জামশেদ এখন নিজের উপার্জনে সংসার চালাচ্ছেন। স্কুলে পড়াচ্ছেন দুই ছেলেমেয়েকে। পাশাপাশি ব্যাংকে এরই মধ্যে জমিয়ে ফেলেছেন ৭ হাজার ৪০০টাকা। নড়াইল জেলা প্রশাসনের সহায়তায় কেনা ভ্যান চালিয়ে সফলতা পেয়েছেন জামশেদ। তাঁর মতো সহায়তা পেয়েছেন জেলার ৬২৪ জন, যাঁরা অতীতে ভিক্ষাবৃত্তির মতো অসম্মানজনক পেশায় ছিলেন। এখন তাঁরা কর্মব্যস্ত ক্ষুদ্র ব্যবসা, ছাগল, হাঁস ও মুরগি পালন, দোকানদারি ও দরজির কাজ, ভ্যানগাড়ি চালানোসহ নানা পেশায়। একেকজন হয়ে উঠেছেন কর্মের হাতিয়ার। বর্তমানে ব্যাংকে তাঁদের সামগ্রিক সঞ্চয় প্রায় ৪৭ লাখ টাকা। জেলা প্রশাসকের কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, নড়াইলকে ভিক্ষুকমুক্ত জেলা হিসেবে গড়ে তুলতে চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে উদ্যোগ নেয় জেলা প্রশাসন। ২২ মার্চ থেকে এই প্রকল্পের কার্যক্রম শুরু হয়। প্রথমে চালানো হয় ভিক্ষুক জরিপ। এর মাধ্যমে জেলায় ৭৪৮ জন ভিক্ষুককে তালিকাভুক্ত করা হয়। তাঁদের মধ্যে ৬২৪ জনকে পুনর্বাসিত করার কর্মসূচি হাতে নেওয়া হয়। তাঁদের পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকের সদস্য করে সরকারের ‘একটি বাড়ি একটি খামার’ প্রকল্পের আওতায় ঋণের ব্যবস্থা করা হয়। এরপর বিভিন্ন উপকরণ কিনে দেওয়ার পাশাপাশি প্রশিক্ষণের মাধ্যমে মানুষগুলোকে কর্মমুখী করে তোলা হয়েছে। এ ছাড়া তাঁদের সামাজিক নিরাপত্তাবেষ্টনীর আওতায় আনা হয়। দেওয়া হয়েছে বয়স্ক, বিধবা ও প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ড। এখন এসব মানুষ কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করেন। পুনর্বাসিত আরেকজন আবু তালেব (৪৫)। সদর উপজেলার আউড়িয়া ইউনিয়নের নাকসি গ্রামের এই বাসিন্দা জন্ম থেকেই পঙ্গু। অসচ্ছল পরিবারে জন্ম নেওয়ায় শৈশব থেকে ভিক্ষা করা ছাড়া উপায় ছিল না আবু তালেবের। তবে পুনর্বাসন কর্মসূচির আওতায় একটি দোকান এবং ১৪টি হাঁস পেয়ে এখন তিনি স্বাবলম্বী। আবু তালেব বললেন, তিনি এখন আর ভিক্ষাবৃত্তি করেন না। স্ত্রী, দুই ছেলে ও এক মেয়ে নিয়ে বেশ ভালোই আছেন। একইভাবে কালিয়া উপজেলার বাবরা-হাচলা গ্রামের প্রকাশ ঘোষ (৪৫) ও কাশিপুর গ্রামের ফারুক হোসেন (৩৬) দুজনেরই চোখে আলো নেই। একটা সময় ভিক্ষা করে জীবিকা চালালেও এখন তাঁরা গর্বের সঙ্গে বলছেন, ‘আমি দোকানের মালিক।’ ভিক্ষুক পুনর্বাসন কর্মসূচি বদলে দিয়েছে তাঁদের জীবন-জীবিকা। জেলা প্রশাসক হেলাল মাহামুদ শরীফ আমাদের নড়াইল জেলা প্রতিনিধি উজ্জ্বল রায় কে বলেন, প্রকল্পের জন্য ঋণের পাশাপাশি কল্যাণ অনুদান হিসেবে সমাজসেবা অধিদপ্তর থেকে ৬ লাখ ৬০ হাজার এবং সমাজকল্যাণ পরিষদ থেকে ৭ লাখ টাকা পাওয়া যায়। এ ছাড়া জেলার বিত্তবান কয়েকজন সহায়তা করেন। এসব টাকা দিয়ে হাঁস-মুরগি, ছাগল, দোকান, সেলাই মেশিন, ভ্যানগাড়ীসহ বিভিন্ন উপকরণ কিনে কর্মসূচির আওতায় আনা ব্যক্তিদের মাঝে বিতরণ করা হয়। পাশাপাশি কিছু ব্যক্তিকে বয়স্ক ভাতা, বিধবা, প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ড দেওয়া হয়েছে।তিনি বলেন, বিষয়টি দেখভালের জন্য নড়াইলের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক ছিদ্দিকুর রহমানকে সমন্বয়কের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক ছিদ্দিকুর রহমান বলেন, এখন পর্যন্ত কর্মসূচিতে বেশ সফলতা পাওয়া গেছে। কর্মসূচি সফল করতে প্রতিটি উপজেলায় ইউএনও, ইউনিয়নে চেয়ারম্যান এবং ওয়ার্ডে গঠিত কমিটির সদস্যরা তৎপর রয়েছেন। তালিকাভুক্ত বাকি ১২৪ জনকেও পর্যায়ক্রমে কর্মসূচির আওতায় আনা হবে। তখন নডাইল হবে ভিক্ষুকমুক্ত জেলা।

Please follow and like us:

পাঠক গনন যন্ত্র

  • 4487708আজকের পাঠক সংখ্যা::
  • 10এখন আমাদের সাথে আছেন::

সর্বশেষ খবর

এ বিভাগের আরও খবর

প্রধান সম্পাদক- খোরশেদ আলম চৌধুরী, সম্পাদক- আশরাফুল ইসলাম জয়,  উপদেষ্টা সম্পাদক- নজরুল ইসলাম চৌধুরী।

প্রধান সম্পাদক কর্তৃক  প্রচারিত ও প্রকাশিত

ঢাকা অফিস : রোড # ১৩, নিকুঞ্জ - ২, খিলক্ষেত, ঢাকা-১২২৯,

সম্পাদক - ০১৫২১৩৬৯৭২৭,০১৮৮০৯২০৭১৩

Email-dailynayaalo@gmail.com নিউজ রুম।

Email-Cvnayaalo@gmail.com সিভি জমা।

 

সাইট উন্নয়নেঃ ICTSYLHET