১৮ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, রবিবার, ৫ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ৫ই রমজান, ১৪৪২ হিজরি

শিরোনামঃ-
  • হোম
  • সকল সংবাদ
  • নড়াইলে পূজামন্ডপে সকাল থেকেই চন্ডিপাঠ ঢাকের বাদ্য আর শংখের ধ্বনিতে, মুখরিত ছিল বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ, পুলিশ সুপার

নড়াইলে পূজামন্ডপে সকাল থেকেই চন্ডিপাঠ ঢাকের বাদ্য আর শংখের ধ্বনিতে, মুখরিত ছিল বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ, পুলিশ সুপার

প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

আপডেট টাইম : অক্টোবর ০৭ ২০১৬, ২২:২০ | 631 বার পঠিত

উজ্জ্বল রায়, নড়াইল জেলা প্রতিনিধি ■

ষষ্ঠাদি কল্পারম্ভ এবং বোধন আমন্ত্রণ ও অধিবাস এবং ষষ্ঠী পূজার মধ্যদিয়ে পাঁচ দিনব্যাপী শারদীয় দুর্গা উৎসব আজ শুক্রবার শুরু হয়েছে। বিকেল ৪টায় অনুষ্ঠিত হয়েছে ষষ্ঠী পূজা। মহাসপ্তমী। নড়াইল জেলা প্রতিনিধি উজ্জ্বল রায়ের পাঠানো তথ্যর ভিতিতে জানা যায় সকাল থেকেই চন্ডিপাঠে মুখরিত ছিল নড়াইল সব পূজামন্ডপ। ঢাকের বাদ্য আর শংখের ধ্বনিতে ভিন্ন মাত্রার যোগ হয়। সকালে ভক্তদের উপস্থিতি কম দেখা গেলেও বিকেলে পূজা অনুষ্ঠানের সময় ভিড় বাড়তে থাকে। সন্ধ্যায় বিভিন্ন মন্ডপ আলোক সজ্জায় সাজানো হয়।এ উপলক্ষে সারাদিন পূজা-অর্চনা ও ভজনসংগীত অনুষ্ঠিত হয় এবং রাতে হয় আরাত্রিক। সপ্তমী পূজা অনুষ্ঠিত হবে সকাল ৭টা ২৫ মিনিটে। এদিনে শারদীয় দুর্গাদেবির নবপত্রিকা প্রবেশ, সপ্তম্যদি কল্পারম্ভ ও সপ্তমীবিহিত পূজা প্রশস্তা। পূজা উদযাপন পরিষদের হিসাব অনুযায়ী, এবার নড়াইল জেলায় ৫৩৮ স্থায়ী-অস্থায়ী মন্ডপে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হচ্ছে, বিশুদ্ধ পঞ্জিকামতে, জগতের মঙ্গল কামনায় দেবী দুর্গা এবার ঘোটকে (ঘোড়া) চড়ে মর্তলোকে (পৃথিবী) এসেছেন। আর দেবী স্বর্গালোকে বিদায় নেবেন ঘোটক (ঘোড়ায়) চড়ে। পূরাণ মতে, রাজা সুরথ প্রথম দেবী দুর্গার আরাধনা শুরু করেন। বসন্তে এ পূজার আয়োজন করায় এ পূজাকে বাসন্তী পূজা বলা হয়। রাবণের হাত থেকে সীতাকে উদ্ধারে যাত্রার আগে শ্রীরাম চন্দ্র দুর্গাপূজার আয়োজন করেছিলেন শরৎকালের অমাবশ্যা তিথিতে। এ জন্যই দেবীর শরৎকালের এ পূজাকে অকাল বোধনও বলা হয়। দুর্গাপূজা উপলক্ষে প্রতিটি পূজামন্ডপের নিরাপত্তা রক্ষায় পুলিশ, আনসার, র‌্যাব ও অন্যান্য আইন-শৃংখলা বাহিনীর সদস্যরা দায়িত্ব পালন করছেন। পুলিশ ও র‌্যাবের পাশাপাশি প্রায় প্রতিটি মন্ডপে স্বেচ্ছাসেবকগণ দায়িত্ব পালন করছেন। সার্বজনীন পূজা কমিটির উদ্যোগে কেন্দ্রীয় নিয়ন্ত্রণ কক্ষ খোলা হয়েছে। ষষ্ঠাদি কল্পারম্ভ এবং বোধন আমন্ত্রণ ও অধিবাস এবং ষষ্ঠী পূজার মধ্যদিয়ে পাঁচ দিনব্যাপী শারদীয় দুর্গা উৎসব আজ শুক্রবার শুরু হয়েছে। বিকেল ৪টায় অনুষ্ঠিত হয়েছে ষষ্ঠী পূজা। মহাসপ্তমী। সকাল থেকেই চন্ডিপাঠে মুখরিত ছিল সব পূজামন্ডপ। ঢাকের বাদ্য আর শংখের ধ্বনিতে ভিন্ন মাত্রার যোগ হয়। সকালে ভক্তদের উপস্থিতি কম দেখা গেলেও বিকেলে পূজা অনুষ্ঠানের সময় ভিড় বাড়তে থাকে। সন্ধ্যায় বিভিন্ন মন্ডপ আলোক সজ্জায় সাজানো হয়। নড়াইল রামকৃষ্ণ মিশনে এ উপলক্ষে সারাদিন পূজা-অর্চনা ও ভজনসংগীত অনুষ্ঠিত হয় এবং রাতে হয় আরাত্রিক। সপ্তমী পূজা অনুষ্ঠিত হবে সকাল ৭টা ২৫ মিনিটে। এদিনে শারদীয় দুর্গাদেবির নবপত্রিকা প্রবেশ, সপ্তম্যদি কল্পারম্ভ ও সপ্তমীবিহিত পূজা প্রশস্তা নড়াইলে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দূর্গাপূজা। এরই মধ্যে উৎসবের সব প্রস্তুতি শেষ হযেেছ। বোধন পুজা থেকে নবমীর রাত-উৎসবের রঙে মেতে থাকবে বাঙ্গালি সনাতন ধর্মাবলম্বীরা। আজ সকাল সাড় আট টায় ষষ্ঠী পূজার মধ্য দিয়ে এ উৎসব শুরু হছে। সপ্তমী, মহা অষ্টমী, মহা নবমী ও বুধবার বিজয দশমী শেষে প্রতিমা বিসর্জন করা হবে। আমাদের নড়াইল জেলা প্রতিনিধি উজ্জ্বল রায়ের পাঠানো তথ্যর ভিতিতে জানা যায় সার্বজনীন পূজা কমিটির তথ্যমতে এবার নড়াইল জেলায় ৫শত ৩৮টি পুজা মন্ডপে শারদীয় দুর্গা পুজা উদযাপন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। বরাবরের মতোই সবচেয বেশি সদর উপজেলায় ২৩০, পূজা হচ্ছে । সনাতন ধর্মালম্বিদের সব চেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গোৎসবকে ঘিরে ব্যাপক ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন প্রতিমা তৈরীর শিল্পিদের পাশাপাশি সনাতন ধর্মালম্বিরা।জেলা,উপজেলা জুড়ে চলছে সাজ সাজ রব। ইতিমধ্যে প্রতিমা তৈরীর কাজ শেষ । বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে এমন চিত্র। শরতের শেষান্তে আর হেমন্তের আগমনে শিউলি ঝরা আর রজনী গন্ধার সুবাশে উদ্বেলিত ধর্মপ্রান হিন্দু সম্প্রদায় শারদীয় দুর্গোৎসবকে সামনে রেখে তাদের মাঝে চলছে আনন্দের উল্লাস। এ দিকে শান্তিপুর্ন ভাবে পুজা উদযাপনকে কেন্দ্র করে থানা পুলিশের পক্ষ থেকে নেয়া হয়েছে ব্যাপক প্রস্তুতি। এ বিষয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো: দেলোয়ার হোসনে খান জানান নড়াইল সদর উপজেলায় পূজা হচ্ছে ২৩০, টি পুজা মন্ডপে উদযাপিত হচ্ছে শারদীয়া দুর্গাপুজা। দুর্গাপুজা শান্তিপুর্ন ভাবে উদযাপনের লক্ষ্যে ইতিমধ্যে পুলিশের পক্ষ থেকে নেয়া হয়েছে বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থা। প্রতিটি মন্ডপে আনসার সদস্যদের পাশাপাশি থাকবেন পুলিশ সদস্য। এছাড়াও আইন শৃংখলাসহ সার্বিক বিষয় মাথায় রেখে প্রতিদিন সকাল থেকে মধ্য রাত পর্যন্ত মটর সাইকেল সাদা পোশাকে একদল পুলিশ টহল করবেন প্রতিটি মন্ডপ এলাকায়। কোথাও কোন ধরনের বিশৃংখলা যাতে না হয় সেদিক বিবেচনা করে সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। শিল্পিরা নাওয়া খাওয়া ভুলে দিন রাত সমানতালে তালিয়ে যাচ্ছেন দুর্গাদেবীকে মনের মত করে ফুটিয়ে তুলতে রং তুলির কাজ। সনাতন ধর্মালম্বিদের বড় ধর্মীয উৎসবকে ঘিরে যাতে করে কোথাও কোন ধরনের সমস্যা সৃষ্টি না হয় সেজন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে সব ধরনের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হয়েছে। বিশৃংখলা এড়াতে এখন থেকে পুলিশ প্রশাসন তৎপর রয়েছেন।-আগামী ৬ অক্টোবর দুর্গা দেবীর বোধন পূজার মধ্য দিয়ে শুরু হবে নড়াইলের শারদীয় দুর্গা পুজা উদযাপন উপলক্ষে জেলা পর্যায় প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। উপস্থিতিতে নড়াইলের পুলিশ সুপার সরদার রকিবুল ইসলাম বলেন, শারদীয় দুর্গা পুজা উদযাপন কোন প্রকার বিশৃঙ্খলাকারী সৃষ্টিকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে। সভায় নড়াইলের পুলিশ সুপার সরদার রকিবুল ইসলাম, সহকারী পুলিশ সুপার (সদর-সার্কেল) মোঃ কামরুজ্জামান, থানার অফিসার ইনচার্জ মো: দেলোয়ার হোসনে খান নড়াইল, লোহাগড়ায়, কালিয়া উপজেলার পুজা উদযাপন কমিটির সভাপতি ও সেক্রেটারীদের নিয়ে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। আমাদের নড়াইল জেলা প্রতিনিধি উজ্জ্বল রায়ের পাঠানো তথ্যর ভিতিতে জানা যায় সভায় পুলিশ সুপার সরদার রকিবুল ইসলাম তার বক্তব্যে বলেন, বরাবরের ন্যায় এবারও পুজা মন্ডপের নিরাপত্তাসহ সার্বিক আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় পুলিশ, আনসার, স্বেচ্ছাসেবক, কমিউনিটি পুলিশিং এর সহযোগিতা থাকবে। আমরা কোন অবস্থাতেই জঙ্গিবাদ নাশকতা হতে দেব না। সকলের আন্তরিক সহযোগিতা থাকলে নড়াইলে এবার দুর্গা পুজা শান্তিপূর্ণভাবে উদযাপন হবে। এ সময় বক্তব্য অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, নড়াইল পৌর মেয়র মো: জাহাঙ্গীর হোসেন বিশ্বাস, অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক বিজন কুমার সাহা, জেলা সাংস্কৃতিক জোটের আহবায়ক মলয় কুমার কুন্ডু, জেলা পুজা উযাপন কমিটির সভাপতি অশোক কুমার কুন্ডু, সদর কমিটির সভাপতি অমিত সাহা রাজা, সাধারণ সম্পাদক দীলিপ বিশ্বাস, কালিয়া কমিটির সভাপতি অজয় ঘোষ, সাধারণ সম্পাদক কমল আঁখি বিশ্বাস, লোহাগড়া কমিটির সভাপতি কমল কৃষ্ণ বালা, যুগ্ম সম্পাদক রনজিত কুমার টিকাদার, অ্যাডভোকেট সঞ্জিব বসু, বাবুল কুমার সাহা, অ্যাডভোকেট রমা রানী বিশ্বাস, নিখিল সরকার প্রমুখ। সভায় উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট কাজী মাহাবুবুর রহমান, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাছিমা খাতুন, লোহাগড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার সেলিম রেজা, সমাজসেবার উপ পরিচালক রতন কুমার হালদার, জেলা ত্রাণ ও দূর্যোগ কর্মকর্তা মো: আমিনুল ইসলাম, সদর থানার অফিসার ইনচার্জ মো: দেলোয়ার হোসনে খান প্রমুখ। সভা জানায়, এবার নড়াইল জেলায় ৫শত ৩৮টি পুজা মন্ডপে দুর্গা পুজা উদযাপন হবে। এর মধ্যে সদর উপজেলায় ২৩০, কারিয়ায় ১৬০, লোহাগড়ায় ১৪৮টি পুজা মন্ডপ। এছাড়া জেলায় ৩৭টি পুজা মন্ডপে কার্ত্তিয়ানি পুজা অনুষ্ঠিত হবে। এর মধ্যে সদরে ১১, লোহাগড়ায় ১৩ এবং কালিয়ায় ১৩টি। উল্লেখ্য, আগামি ৭দিনে মধ্যেই প্রতিমা তৈরির সকল কাজ শেষ হবে।’ আগামী ৬ অক্টোবর দুর্গা দেবীর বোধন পূজার মধ্য দিয়ে শুরু হবে এ উৎসব এবং আগামী ১১ অক্টোবর হাজারো ভক্তের উপস্থিতিতে প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে শেষ হবে এ উৎসব।

Please follow and like us:

পাঠক গনন যন্ত্র

  • 4491939আজকের পাঠক সংখ্যা::
  • 8এখন আমাদের সাথে আছেন::

সর্বশেষ খবর

এ বিভাগের আরও খবর

প্রধান সম্পাদক- খোরশেদ আলম চৌধুরী, সম্পাদক- আশরাফুল ইসলাম জয়,  উপদেষ্টা সম্পাদক- নজরুল ইসলাম চৌধুরী।

প্রধান সম্পাদক কর্তৃক  প্রচারিত ও প্রকাশিত

ঢাকা অফিস : রোড # ১৩, নিকুঞ্জ - ২, খিলক্ষেত, ঢাকা-১২২৯,

সম্পাদক - ০১৫২১৩৬৯৭২৭,০১৮৮০৯২০৭১৩

Email-dailynayaalo@gmail.com নিউজ রুম।

Email-Cvnayaalo@gmail.com সিভি জমা।

 

সাইট উন্নয়নেঃ ICTSYLHET