৭ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, শুক্রবার, ২৪শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৪শে রমজান, ১৪৪২ হিজরি

শিরোনামঃ-

নড়াইলে বিলুপ্তির পথে গরু দিয়ে হাল চাষ

Khorshed Alam Chowdhury

আপডেট টাইম : আগস্ট ০৬ ২০১৬, ০১:৩৯ | 651 বার পঠিত

gramউজ্জ্বল রায়, নড়াইল জেলা প্রতিনিধিঃ
নড়াইলের বিভিন্ন এলাকায় আগের মত এখন আর লাঙ্গল দিয়ে গরু টানা হাল চাষ দেখা যায় না।এক সময় বাণিজ্যিকভাবে কৃষক গরু পালন করতো ।এছাড়া হাল চাষ করার জন্য কিছু মানুষ গবাদি পশু দিয়ে হাল চাষকে পেশা হিসাবে নিত। নিজের সামন্য জমি টুকুর পাশাপাশি অন্যের জমিতে হাল চাষ করে তাদের সংসারের ব্যয় নির্বাহ হতো। গরু দিয়ে হাল চাষে সময় লাগলেও মালিকরা অপেক্ষা করে হলেও হাল চাষের ব্যবস্থা করত। হালের গরু কিনে দারিদ্র মানুষ জমি চাষ করেই তাদের পরিবারে সচ্ছলতা ফিরে পেত। নড়াইলে সদর উপজেলার ভদ্রবিলা ইউনিয়নের বাগডাংগা গ্রামের আতার ম্যোল বলেন, ছোটবেলা আমাদের হাল চাষের কাজ করার। বাড়িতে হাল চাষের ৪টি হালের বলদ গরু ছিল ৩ জোড়া। চাষের জন্য দরকার হতো বলদ ১ জোড়া, কাঠ লোহার তৈরি লাঙ্গল, জোয়াল, মই, লরি (বাশের তৈরি গরু তাড়ানোর লাঠি), গরুর মুখে টোনা এই লাগতো আমাদের। আগে গরু দিয়ে হাল চাষ করলে জমিতে ঘাস কম হতো। অনেক সময় গরুর গোবর জমিতে পড়ত, এতে করে জমিতে অনেক জৈব্য সার হতো ক্ষেতে ফলন ভালো হত। গরু দিয়ে হাল চাষ করে ছেলে মেয়ের লেখাপড়া ও সংসার মোটামুটি ভালই চলতো। এখন নতুন নতুন মেশিন (ট্রাক্টর), পাওয়ার টিলার মেশিন দিয়ে এখানকার লোকজন চাষাবাস করে।আমাগে তো মেশিন নাই জমি চাষ করার, তাই এহন সংসার চালাতে অনেক কষ্ট হছে। বাবার সাথে জমি চাষ করতে আসা মুলিয়া স্কুলের পঞ্চম শ্রেনির শিক্ষার্থী বলেন, প্রতিদিন সকালে স্কুলে যাই স্কুল থেকে আইসে বাবার সাথে নেমে পড়ি হাল চাষ করার জন্য বাবার স্বপ্ন আমি লেখাপড়া করে ভালো শিক্ষক হই। তাই বাবাকে সহোযোগীতা করে সংসারে অভাব একটু কম হয় লেখাপড়ার জন্য বই, খাতা ও কলম ঠিকমত কিনতে পারবো। আমি লেখাপড়া করে বাবার স্বপ্ন পূরন করতে পারবো। তাই কাজের পাশাপাশি লেখাপড়া চালিয়ে যাচ্ছি। এব্যাপারে উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা বলেন, গরুর পরিমান কমে জাওয়ায় এ কারনে বর্তমানে ট্রাক্টর দিয়ে হাল চাষ হচ্ছে। এছাড়া গরু দিয়ে হাল চাষ না হওয়ার কারনে মটি জৈবিক ক্ষমতা হারাচ্ছে। তাই একদিকে যেমন ফলন কমে যাচ্ছে তেমনি রাসায়নিক সারের প্রভাব বেড়েছে। এছাড়া টেক্টরে যেমন খরচ বেশী হয়। কিন্তু গরু দিয়ে হাল চাষে খরচ কম হয়। বহু প্রান্তিক কৃষকের কর্ম সংস্থান হয় বলে জানান।

Please follow and like us:

পাঠক গনন যন্ত্র

  • 4516694আজকের পাঠক সংখ্যা::
  • 3এখন আমাদের সাথে আছেন::

সর্বশেষ খবর

এ বিভাগের আরও খবর

প্রধান সম্পাদক- খোরশেদ আলম চৌধুরী, সম্পাদক- আশরাফুল ইসলাম জয়,  উপদেষ্টা সম্পাদক- নজরুল ইসলাম চৌধুরী।

প্রধান সম্পাদক কর্তৃক  প্রচারিত ও প্রকাশিত

ঢাকা অফিস : রোড # ১৩, নিকুঞ্জ - ২, খিলক্ষেত, ঢাকা-১২২৯,

সম্পাদক - ০১৫২১৩৬৯৭২৭,০১৮৮০৯২০৭১৩

Email-dailynayaalo@gmail.com নিউজ রুম।

Email-Cvnayaalo@gmail.com সিভি জমা।

 

 

সাইট উন্নয়নেঃ ICTSYLHET