২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, রবিবার, ১১ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৮ই সফর, ১৪৪৩ হিজরি

শিরোনামঃ-

প্রধানমন্ত্রীকে বহনকারী বিমান আকাশে ৩১ মিনিট চক্কর : দুটি তদন্ত কমিটি গঠন

Khorshed Alam Chowdhury

আপডেট টাইম : জুন ০৯ ২০১৬, ০৭:০০ | 654 বার পঠিত

biman_bangladesh_airlines_15557_1465414864নয়া আলো ডেস্ক- শাহজালাল (র.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের রানওয়ের ক্লিয়ারেন্স না পাওয়ায় ৩১ মিনিট আকাশে চক্কর দিতে হয়েছিল প্রধানমন্ত্রীকে বহনকারী বিমানটির। এটি শাহজালালে অবতরণের আগ মুহূর্তে হঠাৎ কন্ট্রোল টাওয়ারের মাধ্যমে ফ্লাইটটি অবতরণে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে স্পেশাল সিকিউরিটি ফোর্স (এসএসএফ)। টাওয়ার থেকে ওই ফ্লাইটের পাইলট ক্যাপ্টেন জামিলকে জানানো হয়, রানওয়ের ঠিক মাঝামাঝি স্থানে বেশ কিছু ঝুঁকিপূর্ণ মেটালিক বস্তু পড়ে আছে। মুহূর্তে পাইলট অবতরণের সিদ্ধান্ত বাতিল করে। আর উপায়ান্তর না দেখে আকাশে চক্কর দিতে থাকে। প্রায় ৩১ মিনিট আকাশে চক্কর দেয়ার পর অবতরণের অনুমতি পান পাইলট। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সৌদি আরব থেকে ঢাকায় ফেরার পথে শাহজালাল বিমানবন্দরে এ ঘটনা ঘটে।
এভিয়েশন বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, রানওয়ে থেকে যেসব মেটালিক বস্তু অপসারণ করা হয়েছে সেগুলো না সরালে ফ্লাইটটি ল্যান্ড করার পর বড় ধরনের দুর্ঘটনার আশংকা ছিল। উড়োজাহাজের চাকা ফেটে গিয়ে জাহাজটি রানওয়ে থেকে ছিটকে পড়তে পারত। মেটালিক বস্তুগুলো উড়োজাহাজের ইঞ্জিনে ঢুকে যেতে পারত। এতে আগুনও ধরার সম্ভাবনা ছিল। এছাড়া চাকার সঙ্গে ঘর্ষণেও উড়োজাহাজে আগুন ধরে বড় ধরনের ক্রাশ হওয়ারও সম্ভাবনা ছিল। তাদের মতে, এসএসএফের বুদ্ধিমত্তা ও বিচক্ষণতায় অল্পের জন্য প্রধানমন্ত্রীকে বহনকারী বিমানের ওই ভিভিআইপি ফ্লাইটটি রক্ষা পেয়েছে।
শাহজালাল বিমানবন্দরের কন্ট্রোল টাওয়ার বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, বাংলাদেশ বিমানের বোয়িং ৭৭৭-৩০০ ইআরের একটি এয়ারক্রাফটের ইঞ্জিন থেকেই ওই মেটালিক বস্তুগুলো রানওয়েতে পড়েছিল। ওইদিন বিকাল সোয়া ৫টার দিকে ক্যাপ্টেন শোয়েব আলীর নেতৃত্বে ওই ফ্লাইটটি উড্ডয়নের আগ মুহূর্তে ইঞ্জিনের হট সেকশনে ত্র“টি ধরা পড়ে। বিমানসূত্রে জানা গেছে, ফ্লাইটটি রানওয়ে থেকে টেকঅপ করে কিছুদূর যাওয়ার পরই রাইট সাইডের ইঞ্জিনের হট সেকশন থেকে বেশ কিছু মেটালিক বস্তু খুলে রানওয়েতে পড়ে। এরপর পাইলট ফ্লাইটটি বাতিল করে এয়ারক্রাফটটি হ্যাঙ্গারে ফেরত পাঠান। নিয়ম অনুযায়ী উড়োজাহাজটি হ্যাঙ্গারে ফেরত পাঠানোর পর সিভিল এভিয়েশনের অ্যারো এটিএস (এয়ার ট্রাফিক সিস্টেম) বিভাগের উচিত ছিল রানওয়ে থেকে মেটালিক বস্তুগুলো অপসারণ করা। কিন্তু অভিযোগ আছে, ভিভিআইপি ফ্লাইট আছে জেনেও এটিএস বিভাগ তা করেনি।
এ প্রসঙ্গে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের পরিচালক ফ্লাইট সেফটি উইং কমান্ডার চৌধুরী জিয়াউল কবির যুগান্তরকে জানান, এ ঘটনায় দুটি উচ্চ পর্যায়ের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। ওই মেটালিক বস্তু কিভাবে রানওয়েতে পড়েছিল তা খতিয়ে দেখতে তদন্ত কমিটি কাজ করবে। এটা সাবোটাজ নাকি অন্য কিছু তাও খতিয়ে দেখবে কমিটি।
জানা গেছে, শাহজালাল বিমানবন্দরের পরিচালক গ্রুপ ক্যাপ্টেন জাকির হাসানকে প্রধান করে চার সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। অপর তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে সিভিল এভিয়েশনের ফ্লাইট অ্যাক্সিডেন্ট ইন্সপেকশন বিভাগ থেকে।
বিমানমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন বলেন, ‘অ্যাক্সিডেন্ট ইজ অ্যাক্সিডেন্ট’। এ ধরনের ঘটনা কেন ঘটল সেটা বের করার জন্য তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তারপর কে দোষী সেটা চিহ্নিত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে। তাৎক্ষণিকভাবে একজনকে ক্লোজ করা হয়েছে।
বিমানের চেয়ারম্যান এয়ার মার্শাল (অব.) ইনামুল বারী বলেন, প্রধানমন্ত্রীর ফ্লাইট উপলক্ষে মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা থেকে ৮টা পর্যন্ত শাহজালালে নোটাম (বিমান ওঠানামা বন্ধ) ছিল। তারপরও কিভাবে রানওয়েতে এ ধরনের মেটালিক বস্তু থাকল এটা তদন্ত করলে বেড়িয়ে আসবে। তিনি বলেন, মূলত শাহজালাল বিমানবন্দরের রানওয়ে ক্লিয়ার না থাকায় এ ঘটনা ঘটেছে। রানওয়ে পরিষ্কার ও নিরাপদ রাখার দায়িত্ব ছিল সিভিল এভিয়েশনের।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের একজন কর্মকর্তা জানান, রানওয়েতে ঝুঁকিপূর্ণ মেটালিক বস্তুু পড়ে থাকার পরও এটিএস বিভাগ তা নিয়ে কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। যে কোনো ভিভিআইপি ফ্লাইট অবতরণের আগ মুহূর্তে নিয়ম অনুযায়ী এসএসএফের দায়িত্বরত কর্মকর্তারা রানওয়েতে গিয়ে ফাইনাল তল্লাশি করে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে বেবিচকের একজন শীর্ষ কর্মকর্তা বলেন, প্রথমে এসএসএফ সদস্যরা দূর থেকে দেখতে পান রানওয়েতে বোমাসদৃশ কিছু বস্তু পড়ে আছে। তারা গাড়ি নিয়ে তাৎক্ষণিক সেখানে ছুটে যান এবং এসব বস্তুু দেখে আঁতকে ওঠেন।
এভিয়েশন বিশেষজ্ঞদের মতে, এ ঘটনায় আবারও শাহজালাল বিমানবন্দরের রানওয়ের নিরাপত্তা ব্যবস্থাপনায় সিভিল এভিয়েশনের গাফিলতি ও দৈন্যদশার চিত্র ফুটে উঠেছে।
বিমান সূত্র জানায়, সৌদি আরব সফর শেষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে বিমানের বিজি (০৩৬) ফ্লাইটে ঢাকার আকাশে পৌঁছেন। নিয়ম অনুযায়ী এ ধরনের ফ্লাইট উড্ডয়ন-অবতরণের আগে এসএসএফ বিমানবন্দরের সার্বিক নিরাপত্তা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে থাকেন। রানওয়ে পর্যবেক্ষণ করতে গিয়ে এসএসএফ সদস্যরা দেখতে পান সেখানে বেশ কিছু মেটালিক বস্তু পড়ে আছে। এসব বস্তু দেখে তারা আঁতকে ওঠেন। পরে এসএসএফ সদস্যদের তত্ত্বাবধানে এসব মেটালিক বস্তু সরিয়ে নেয়ার পর ফ্লাইটটিকে অবতরণের সংকেত বার্তা পাঠান ককপিটে। তারপর রাত আটটার দিকে সেটা নিরাপদে অবতরণ করে। এদিকে প্রধানমন্ত্রীকে অভ্যর্থনা জানাতে বিমানবন্দরে হাজির হওয়া মন্ত্রী ও ভিআইপিরাও এ খবর জেনে আঁতকে ওঠেন। এ সময় একাধিক মন্ত্রী জানতে চান- রানওয়ে ক্লিয়ার রাখা ও নিরাপত্তা ব্যবস্থার দায়িত্ব কার? জানা গেছে, সিভিল এভিয়েশনের এটিএস আর নিরাপত্তার দায়িত্ব পালনে নিয়োজিত নিরাপত্তাকর্মী ও সদ্য গঠিত এভসেক সেল বিমানবন্দরে নিরাপত্তার বিষয়টি দেখভাল করছেন। সিভিল এভিয়েশনের মেম্বার (অপস) এয়ার কমোডর মোস্তাফিজুর রহমানের সরাসরি তত্ত্বাবধানে থাকা এভসেক সদস্যদেও পেশাগত কর্মদক্ষতা ও দায়িত্ব পালনের সক্ষমতা নিয়েও প্রশ্ন তোলা হয়। বিমানবন্দরের নিরাপত্তা জোরদার করার জন্য সাধারণ নিরাপত্তা বিভাগের পাশাপাশি অতিরিক্ত ইউনিট হিসেবে এভসেক মোতায়েন করার পরও কেন এ ধরনের ঘটনা ঘটছে সে নিয়ে প্রশ্ন তোলেন একাধিক মন্ত্রী ও ভিআইপি।
মঙ্গলবার শাহজালালে গিয়ে এ সম্পর্কে সাধারণ কর্মচারীদের সঙ্গে আলাপ করে জানা যায়, অর্গানোগ্রাম অনুমোদনের আগেই বিমানবন্দরের নিরাপত্তা জোরদারের অজুহাত দেখিয়ে তড়িঘড়ি করে এভসেক গঠন করেন মেম্বার অপারেশন। উচ্চ বেতনের নিয়োগপ্রাপ্ত এসব সদস্য নিরাপত্তার কাজের চেয়ে বসে বসে অলস সময় কাটান, আর সাধারণ নিরাপত্তাকর্মীদের ওপর খবরদারি করেন। এ নিয়ে নিরাপত্তাকর্মীদের মাঝে ক্ষোভ ও অসন্তোষ দানা বাঁধছে। এ দুয়ের মধ্যে সমন্বয় না থাকায় শাহজালালের নিরাপত্তা বিঘিœত হচ্ছে বলেও তারা জানান।

Please follow and like us:

পাঠক গনন যন্ত্র

  • 4727928আজকের পাঠক সংখ্যা::
  • 5এখন আমাদের সাথে আছেন::

সর্বশেষ খবর

এ বিভাগের আরও খবর

প্রধান সম্পাদক- খোরশেদ আলম চৌধুরী, সম্পাদক- আশরাফুল ইসলাম জয়,  উপদেষ্টা সম্পাদক- নজরুল ইসলাম চৌধুরী।

প্রধান সম্পাদক কর্তৃক  প্রচারিত ও প্রকাশিত

ঢাকা অফিস : রোড # ১৩, নিকুঞ্জ - ২, খিলক্ষেত, ঢাকা-১২২৯,

সম্পাদক - ০১৫২১৩৬৯৭২৭,০১৮৮০৯২০৭১৩

Email-dailynayaalo@gmail.com নিউজ রুম।

Email-Cvnayaalo@gmail.com সিভি জমা।

 

 

সাইট উন্নয়নেঃ ICTSYLHET