২২শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, শুক্রবার, ৬ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৫ই রবিউল আউয়াল, ১৪৪৩ হিজরি

শিরোনামঃ-

বিএনপি’র ৩৮তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী আজ

Khorshed Alam Chowdhury

আপডেট টাইম : সেপ্টেম্বর ০১ ২০১৬, ০২:৫৪ | 688 বার পঠিত

29799_bnpনয়া আলো ডেস্ক- বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপি’র ৩৮তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী আজ। ১৯৭৮ সালের ১লা সেপ্টেম্বর রমনা গ্রীনে এক সম্মেলনের মাধ্যমে তৎকালীন প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান বিএনপি গঠন করেন। দীর্ঘ ৩৭ বছরের চড়াই-উৎরাইয়ের পথপরিক্রমায় বিএনপি আজ দেশের অন্যতম বড় রাজনৈতিক দল। ১৯ দফা কর্মসূচির আলোকে প্রতিষ্ঠার ৫ মাসের মাথায় ১৯৭৯ সালের ফেব্রুয়ারিতে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি সরকার গঠন করে। জিয়াউর রহমানের নির্মম হত্যাকাণ্ডের পর দলের বর্তমান চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বিএনপির হাল ধরেন। তার নেতৃত্বে বিএনপি তিনবার ক্ষমতায় আসীন হয়। সবমিলিয়ে ১৮ বছর দেশ শাসন করেছে বিএনপি। তবে প্রথম থেকেই সুগম ছিল না বিএনপি’র পথচলা। বিএনপি গঠনের মাত্র তিন বছরের মাথায় চট্টগ্রামে বিপথগামী কিছু সেনা সদস্যের হাতে প্রাণ হারান জিয়াউর রহমান। তার মৃত্যুর পর দলের বহু সিনিয়র নেতা বিশ্বাসঘাতকতা করে দল ছেড়ে যান। দলের সে দুর্যোগকালে নেতাকর্মীদের আহ্বানে বিএনপিতে যোগ দেন তৎকালীন গৃহবধূ খালেদা জিয়া। তার নেতৃত্বে দশকব্যাপী স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলন করে বিএনপি। স্বৈরাচার এরশাদের পতন হলে ১৯৯১ সালে অনুষ্ঠিত পঞ্চম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে শক্তিশালী সাংগঠনিক ভিত না থাকা সত্বেও জনসমর্থনে সরকার গঠন করে বিএনপি। ১৯৯৬ সালের স্বল্পকালীন ষষ্ঠ সংসদেও ক্ষমতায় যায় দলটি। ১৯৯৬ সালের সপ্তম সংসদে বিশাল আকারের বিরোধী দল নির্বাচিত হলেও ২০০১ সালের অষ্টম সংসদে ব্রুট মেজরিটি পায় খালেদা জিয়ার নেতৃত্বাধীন বিএনপি। ওয়ান-ইলেভেনের পর জরুরি সরকারের আমলে রীতিমতো রাজনৈতিক ঝড় বয়ে যায় দলটির ওপর। চেয়ারপারসন খাদেলা জিয়াসহ দলের বেশির ভাগ সিনিয়র নেতাকে কারাবন্দি করা হয়। সংস্কার প্রক্রিয়ার নামে দলের ভাঙন ধরানোর চেষ্টা চলে। ২০০৯ সালের নবম জাতীয় নির্বাচনে ভূমিধস পরাজয় হয় বিএনপি’র। এরপর এখন পর্যন্ত আর ঘুরে দাঁড়াতে পারেনি বিএনপি। নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচনে দাবিতে ২০১৪ সালে অনুষ্ঠিত একতরফা নির্বাচন বর্জন করেছে দলটি।
প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বাণীতে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বলেছেন, আজ দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব হুমকির মুখে। ৫ই জানুয়ারির তামাশার নির্বাচনের পর গণতন্ত্র এখন মৃতপ্রায়। দেশবিরোধী নানা চুক্তি ও কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে বর্তমান সরকার জাতীয় স্বার্থকে জলাঞ্জলি দিয়ে চলেছে। দেশে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি ভয়াবহ রূপ ধারণ করেছে। দেশব্যাপী পথে-ঘাটে শুধু লাশের মিছিল। বিদ্যুৎ-গ্যাস-পানি নিয়ে হাহাকার চারদিকে। দ্রব্যমূল্যের লাগামহীন ঊর্ধ্বগতিতে সাধারণ মানুষের নাভিশ্বাস উঠেছে। দেশজুড়ে গণহত্যা. গুম, গুপ্তহত্যা, সন্ত্রাস, চাঁদাবাজি, দুর্নীতি, নিপীড়ন ও নির্যাতনের মহোৎসব চলছে। খালেদা জিয়া বলেন, এই শ্বাসরুদ্ধকর পরিস্থিতিতে আমরা হাত গুটিয়ে বসে থাকতে পারি না। জনগণের অধিকার আদায়ে তাদের দুঃখ-কষ্ট লাঘবে এবং দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব রক্ষা ও বহুদলীয় গণতন্ত্রের ধারা আবারও পুণঃপ্রতিষ্ঠার জন্য বিএনপি জনগণকে সঙ্গে নিয়ে আন্দোলন সংগ্রাম চালিয়ে যাচ্ছে। তাই জনগণের হারানো অধিকার ও তাদের মর্যাদা প্রতিষ্ঠার জন্য আমাদের আন্দোলন। তিনি বলেন, আজকের দিনটি আমাদের সবার জন্য আনন্দ ও প্রেরণার। ১৯৭৮ সালের এই দিনে মহান স্বাধীনতার ঘোষক শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। বাকশালী একদলীয় দুঃশাসনের জের ধরে সে সময়ে দেশে বিরাজমান চরম জাতীয় সংকটের কারণে যে রাজনৈতিক শূন্যতা সৃষ্টি হয়েছিল তা পূরণ করতে বাংলাদেশে বহুদলীয় গণতন্ত্র পুনঃপ্রবর্তন এবং এর ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে রাজনৈতিক দল হিসেবে বিএনপি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। খালেদা জিয়া বলেন, জিয়াউর রহমানের হাতে গড়া বিএনপি বিগত ৩৮ বছরে বার বার সকলের অংশগ্রহণমূলক জনগণের ভোটে রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্ব পেয়েছে এবং দেশ ও জনগণের সমৃদ্ধি ও কল্যাণে কাজ করে গেছে। দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব রক্ষায় আমাদের এই প্রিয় দল অতন্দ্র প্রহরীর ভূমিকা পালন করেছে। বিএনপি চেয়ারপারসন বলেন, বাংলাদেশে গণতন্ত্রকে শক্তিশালী ও প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দেয়ার লক্ষ্যে বিএনপি সাংবিধানিক সংশোধনীর মাধ্যমে সংসদীয় গণতন্ত্র পুনঃপ্রবর্তন করেছে। সামগ্রিকভাবে বাংলাদেশে বহুদলীয় গণতন্ত্রের চর্চা ও বিকাশসহ দেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রায় বিএনপি’র বলিষ্ঠ ভূমিকা জনগণের সমাদর পেয়েছে। দেশবাসীর কাছে এখন সর্বাধিক জনপ্রিয় রাজনৈতিক দল বিএনপি আগামী দিনেও জনগণের আস্থা ও বিশ্বাস অক্ষুণ্ন রেখে দেশ ও জনগণের সেবায় বলিষ্ঠ ইতিবাচক ভূমিকা রাখবে ইনশাআল্লাহ্‌। বাংলাদেশের নিজস্ব স্বকীয়তা, স্বাধীনতা রক্ষায় বিএনপি তার ভূমিকা পালন করে চলেছে। প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে দলের সর্বস্তরের নেতাকর্মী, শুভানুধ্যায়ী এবং দেশবাসীকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানান খালেদা জিয়া। অপর এক বার্তায় বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর দলের ৩৮তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে দলের সর্বস্তরের নেতাকর্মী, শুভানুধ্যায়ী এবং দেশবাসীকে প্রাণঢালা শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানান।
কর্মসূচি: ৩৮তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আজ সকাল ১০টায় নেতাকর্মীদের নিয়ে বিএনপি’র প্রতিষ্ঠাতা শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের সমাধিতে যাবেন দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। পরে তিনি সেখানে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ ও ফাতেহা পাঠে অংশ নেবেন। এছাড়া দুপুর দুইটায় রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে আলোচনা সভার আয়োজন করেছে বিএনপি। খালেদা জিয়ার উপস্থিতিতে আলোচনা সভায় বিএনপি’র কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ ছাড়াও দেশের বরণ্য ব্যক্তিরা বক্তব্য দেবেন। এছাড়াও যথাযথভাবে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন করবে সারা দেশে মহানগর, জেলা, থানা-উপজেলা, পৌরসভা ও সকল ইউনিট। তবে অনুমতি না পাওয়ায় প্রস্তুতি নেয়ার পরও প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে র‌্যালি করতে পারছে না বিএনপি।

Please follow and like us:

পাঠক গনন যন্ত্র

  • 4759241আজকের পাঠক সংখ্যা::
  • 1এখন আমাদের সাথে আছেন::

সর্বশেষ খবর

এ বিভাগের আরও খবর

প্রধান সম্পাদক- খোরশেদ আলম চৌধুরী, সম্পাদক- আশরাফুল ইসলাম জয়,  উপদেষ্টা সম্পাদক- নজরুল ইসলাম চৌধুরী।

প্রধান সম্পাদক কর্তৃক  প্রচারিত ও প্রকাশিত

ঢাকা অফিস : রোড # ১৩, নিকুঞ্জ - ২, খিলক্ষেত, ঢাকা-১২২৯,

সম্পাদক - ০১৫২১৩৬৯৭২৭,০১৮৮০৯২০৭১৩

Email-dailynayaalo@gmail.com নিউজ রুম।

Email-Cvnayaalo@gmail.com সিভি জমা।

 

 

সাইট উন্নয়নেঃ ICTSYLHET