২৭শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, সোমবার, ১২ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৯শে সফর, ১৪৪৩ হিজরি

শিরোনামঃ-

ভালো নেই মিরপুরের ‘ভূতুরে বাড়ি’র রিতা-মিতা

প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

আপডেট টাইম : নভেম্বর ০৪ ২০১৬, ১২:১৫ | 682 বার পঠিত

নয়া আলো ডেস্ক-সিজোফ্রোনিয়া রোগে আক্রান্ত মিরপুরের ‘ভূতুরে বাড়ি’র বাসিন্দা দুই বিদুষী নারী ডা. আইনুন্নাহার রিতা ও প্রকৌশলী নুরুন্নাহার মিতার মানসিক অবস্থার পরিবর্তন হয়নি। তারা আগের মতো ঘরের মধ্যে সারাদিন বন্দি জীবন কাটাচ্ছেন। কারও সঙ্গে যোগাযোগ করেন না!

রাজধানীর মিরপুর ৬ নম্বর সেকশনের ৯ নম্বর সড়কে ‘ভূতের বাড়ি’ নামে পরিচিত নিজেদের বাড়ি থেকে মানসিক ভারসাম্যহীন অবস্থায় রিতা-মিতাকে একটি মানবাধিকার সংস্থা উদ্ধার করে ২০০৫ সালের ১৩ জুলাই। এরপর তাদের মানসিক রোগের চিকিৎসা দেওয়া হয়। চিকিৎসার পর কয়েক বছর স্বাভাবিক জীবনে ফিরে এলেও পরবর্তী সময়ে মানসিক রোগ সিজোফ্রোনিয়ায় আবার আক্রান্ত হন রিতা ও মিতা।

বর্তমানে রিতা-মিতা তাদের বড় বোন কামরুন্নাহার হেনার বাড়িতে থাকেন। ডা. রিতা ও প্রকৌশলী মিতার খোঁজে জাফরাবাদে আবদুল মোমিনের (হেনার স্বামী) বাসায় এই প্রতিবেদক উপস্থিত হলে প্রথমে বাড়ির দারোয়ানসহ মালিক এড়িয়ে যান।

রিতা-মিতার বর্তমান অবস্থার কথা জানার জন্য একাধিকবার জিজ্ঞেস করলে আবদুল মোমিন বলেন, ‘তারা ভালো আছে। সারাদিন ঘরের মধ্যে থাকে আল্লাহ-বিল্লা করে। মাঝে মধ্যে রুমের ভেতর বোরকা পরে থাকে। আমার সঙ্গে দেখা করে না।’

আবদুল মোমিনের সঙ্গে কামরুন্নাহার হেনার বিয়ে হয় ১৯৯৪ সালে। তখনই রিতা-মিতার কিছু আচরণ অস্বাভাবিক ছিল। এমনকি দু’বোনের বিয়ের কথা বললেও তারা কোনো কথা বলতেন না।

রিতা-মিতার দুলাভাইয়ের সঙ্গে কথা বলার এক পর্যায়ে উপস্থিত হন তাদের বড় বোন হেনা। তার কাছে ছোট দু’বোনের কথা জিজ্ঞেস করতেই কেঁদে ফেলেন তিনি। বলেন, ‘ওরা ভালো আছে। নিজেদের মতো করে থাকে। ঠিকমতো খাবার খায়। সারাদিন বই পড়ে, তছবী জপে, নামাজ পড়ে। কারও সঙ্গে কথা বলে না, নিজেদের মতো থাকে।’

রিতা-মিতার বিষয়ে এর বেশি কিছু বলতে চান না বড় বোন হেনা। তিনি বলেন, ‘আমার ঘরে একটা মেয়ে রয়েছে। আমার বোনদের বিষয়ে সবাই জানে। প্রতিবেশীরা নানা ধরনের কথা বলে। মেয়েটাকে বিয়ে দিতে হবে। আমাদের সামাজিক অবস্থার কথা ভাবতে হবে।’

১৯৮২ সালে হেনা-রিতা-মিতার বাবা শরফুদ্দিন আহমেদ ভূঁইয়া মারা যান। আর ২০০৩ সালে মা রওশন আরা বেগম মারা যাবার পর থেকে রিতা-মিতা মিরপুরে তাদের মায়ের বাড়িতে থাকতেন। ৫৩ বছর বয়সী ডা. আইনুন্নাহার রিতা ও ৫১ বছর বয়সী প্রকৌশলী নুরুন্নাহার মিতাকে নিয়ে চিন্তায় দিন পার করছেন তাদের বড় বোন হেনা।

তিনি বলেন, ‘দীর্ঘদিন আমি অসুস্থ। আমি মারা গেলে ওদের দেখবে কে। ওদের দু’জনের জন্য একটা ফ্ল্যাট ছেড়ে দিয়েছি। সেখানেই সারাদিন থাকে। বাইরে বের হয় না। দেড় থেকে দুই বছর আগে মাঝেমধ্যে বাসা থেকে বের হলেও এখন আর বাসার বাইরে যায় না ওরা। কাজের লোক রিতা-মিতার বাসায় রান্না করে দেন। মিরপুরে দুটি দোকান ভাড়ার টাকা দিয়ে তারা নিজেদের প্রয়োজন মেটাতে পারে।’ তবে যাবতীয় খরচের দায়িত্ব বড় বোন হেনা বহন করেন।

সারাদিন বাসার ভেতর কী করে রিতা-মিতা? এমন প্রশ্নের জবাবে হেনা জানান, বই পড়ে অধিকাংশ সময়। ওদের পুরোনো বইগুলো সারাদিন পড়তে থাকে।

রিতা-মিতার বর্তমানে চিকিৎসা হচ্ছে বাংলাদেশ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। মাঝেমাঝে হাসপাতালে রিতা-মিতাকে নিয়ে যান তাদের বড় বোন হেনা। সিজোফ্রোনিয়া রোগে আক্রান্ত রিতা-মিতার অবস্থার পরিবর্তন বিষয়ে চিকিৎসক ও রিতা-মিতার পরিবারের সদস্যরা হতাশ।

এ বিষয়ে হেনা বলেন, ‘মাঝে মধ্যে ডাক্তারের কাছে নিয়ে যাই। তবে কোনো উন্নতির কিছু দেখছি না। আমার মেয়েটাকে নিয়ে এখন চিন্তায় আছি। কারণ রিতা-মিতার অবস্থার কোনো পরিবর্তন হচ্ছে না। এই রকম খালাদের নিয়ে আমার মেয়েটা কী করবে।’

মিরপুরে সাড়ে সাত কাঠা জমির ওপর একটা বাড়ি ও দুটি দোকান রয়েছে রিতা-মিতার মায়ের নামে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ওই বাড়ির ভাড়াটে উডল্যান্ড প্রতিষ্ঠানের মালিক মাহবুবুর রহমান ও অক্সফোর্ড ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের শিক্ষক শহিদুল আলম মঞ্জু। অনেকে বাড়িটি দখলের জন্য নানা চেষ্টা করছেন। আর মায়ের সম্পত্তি আঁকড়ে ধরে বছরের পর বছর নিজ বাড়িতে মানসিক ভারসাম্যহীন জীবন যাপন করেছেন রিতা-মিতা।

বর্তমানে মিরপুরের বাড়ির গেইট সিলগালা করা রয়েছে। আর বাড়ির সামনে রয়েছে দুটি দোকান। হেনা ওই দুই দোকানের ভাড়া তুলে দেন রিতা-মিতার কাছে।

Please follow and like us:

পাঠক গনন যন্ত্র

  • 4728492আজকের পাঠক সংখ্যা::
  • 0এখন আমাদের সাথে আছেন::

সর্বশেষ খবর

এ বিভাগের আরও খবর

প্রধান সম্পাদক- খোরশেদ আলম চৌধুরী, সম্পাদক- আশরাফুল ইসলাম জয়,  উপদেষ্টা সম্পাদক- নজরুল ইসলাম চৌধুরী।

প্রধান সম্পাদক কর্তৃক  প্রচারিত ও প্রকাশিত

ঢাকা অফিস : রোড # ১৩, নিকুঞ্জ - ২, খিলক্ষেত, ঢাকা-১২২৯,

সম্পাদক - ০১৫২১৩৬৯৭২৭,০১৮৮০৯২০৭১৩

Email-dailynayaalo@gmail.com নিউজ রুম।

Email-Cvnayaalo@gmail.com সিভি জমা।

 

 

সাইট উন্নয়নেঃ ICTSYLHET