২৩শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, শুক্রবার, ১০ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১০ই রমজান, ১৪৪২ হিজরি

শিরোনামঃ-

মহানগর আওয়ামী লীগ নেতাদের সামনে ৫ চ্যালেঞ্জ

Khorshed Alam Chowdhury

আপডেট টাইম : এপ্রিল ১৪ ২০১৬, ০১:২৬ | 693 বার পঠিত

9859_b1 নয়া আলো ডেস্ক-

পাঁচটি চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করে দায়িত্ব পালন করতে হবে নগর আওয়ামী লীগের নয়া দায়িত্ব পাওয়া নেতাদের। সামনের চ্যালেঞ্জগুলো মাথায় রেখেই নেতৃত্ব নির্বাচন করেছেন আওয়ামী লীগের হাইকমান্ড। ২০১৯ সালের নির্বাচন, নির্বাচনের আগে বিরোধী পক্ষের সরকারবিরোধী তৎপরতা মোকাবিলা, দলীয় কোন্দল কমানো, সাংগঠনিক তৎপরতা ও দলের ২০তম জাতীয় কাউন্সিলে ভূমিকা রাখতে হবে নতুন নেতৃত্বকে। দায়িত্ব পাওয়া নেতারাও জানিয়েছেন এসব চ্যালেঞ্জের কথা। রোববার দলের সাধারণ সম্পাদক ঢাকা মহানগরকে উত্তর ও দক্ষিণে ভাগ করে আওয়ামী লীগের দুটি কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নাম ঘোষণা করেন। উত্তরের সভাপতি ঢাকা-১১ আসনের এমপি একেএম রহমত উল্লাহ ও সাধারণ সম্পাদক সাদেক খান এবং দক্ষিণে সভাপতি আবুল হাসনাত ও সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ। সদ্য নির্বাচিত এসব নেতাদের লক্ষ্য দলের নিষ্ক্রিয় নেতা ও কর্মীদের উজ্জীবিত করা। সাংগঠনিক কার্যক্রমে সংযুক্ত করা। পাশাপাশি সব ধরনের বিভেদ দূরে ঠেলে সামনের দিকে এগিয়ে যাওয়াই মূল লক্ষ্য বলে জানান তারা। নিজেদের চ্যালেঞ্জ প্রসঙ্গে মহানগর উত্তরের সভাপতি একেএম রহমতউল্লাহ মানবজমিনকে বলেন, মহানগরের সভাপতির দায়িত্ব পাওয়াটাই বড় ধরনের চ্যালেঞ্জ। আওয়ামী লীগ ঐতিহ্যবাহী ও বঙ্গবন্ধুর হাতে গড়া সংগঠন। তাই তার আদর্শ বাস্তবায়ন করার চেষ্টা করবো। সমাজের গ্রহণযোগ্য মানুষদের সম্পৃক্ত করে দলকে আরও এগিয়ে নিয়ে যাবো। তিনি বলেন, আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে মহল্লায় মহল্লায় যাবো। সুন্দর কমিটি গঠন করা হবে। সব ধরনের সমস্যা দূর করার চেষ্টা করবো। কিছু থানা ও ওয়ার্ড কমিটিতে নেতা নির্বাচনে কিছুটা সমস্যা রয়েছে বলে মন্তব্য করেন তিনি। বলেন, এ নিয়ে কিছুটা সমস্যা আছে। কয়েক দিনের মধ্যে তা খুঁজে বের করা হবে। দলের মধ্যে যে কোনো ধরনের কোন্দল সম্মিলিতভাবে নিরসন করা হবে। উত্তরের সাধারণ সম্পাদক সাদেক খান মানবজমিনকে বলেন, সামনেই দলের কাউন্সিল। এটাকে সফল করা আমাদের প্রথম চ্যালেঞ্জ। পাশাপাশি পরবর্তী নির্বাচন ও আন্দোলনেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখা হবে। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ এমনিতেই অনেক শক্তিশালী। আরও শক্তিশালী করার উদ্যোগ নেয়া হবে। দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনা যে দায়িত্ব আমাকে দিয়েছেন তা যথাযথভাবে পালন করবো। বিশেষ করে দলে যারা নিষ্ক্রিয় তাদের সক্রিয় করা হবে। দলের মধ্যে কোনো কোন্দল নেই বলে জানান সাদেক খান। তিনি বলেন, দলের প্রতি ক্ষুব্ধ এমন কাউকে পেলে সঙ্গে সঙ্গে তার বাড়ি যাবো। কোন্দল মেটাবো। কারণ এটা আমাদের জন্য একটা বড় ধরনের চ্যালেঞ্জ। ঢাকা মহানগর দক্ষিণে আওয়ামী লীগকে সবচেয়ে বেশি শক্তিশালী করা হবে বলে জানান সদ্য নির্বাচিত সভাপতি আবুল হাসনাত ও সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ। এ প্রসঙ্গে আবুল হাসনাত মানবজমিনকে বলেন, অতীতে যেভাবে সমন্বয় করে কাজ করেছি সামনের দিকেও সেভাবেই কাজ করবো। দলীয় সভানেত্রী সভাপতির পদটা আমাকে উপহার হিসেবে দিয়েছেন। তাই এ পদ আমার জন্য চ্যালেঞ্জের। নির্বাচন, আন্দোলন সব ক্ষেত্রে মহানগর দক্ষিণের আওয়ামী লীগ সক্রিয় ভূমিকা রাখবে বলে জানান তিনি। আবুল হাসনাত বলেন, ২০১৯ সালে নির্বাচন। ঢাকা দক্ষিণ থেকে যেনো ওই নির্বাচনে ভালো প্রার্থী অংশ নেয় সেদিকটা দেখা হবে। এদিকে অতীতে মহানগর আওয়ামী লীগের যে গৌরবোজ্জ্বল ভূমিকা ছিল তা ধরে রাখাকেই চ্যালেঞ্জ বলে মনে করছেন দক্ষিণের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ। প্রতিবেদক কে তিনি  বলেন, কেন্দ্র যেভাবে নির্দেশ দেবে সেভাবেই কাজ করবো। অতীতেও সংগঠনের জন্য অনেক কাজ করেছি। ভবিষ্যতেও তা অব্যাহত থাকবে। দলের মধ্যে কোনো ধরনের রেষারেষি নেই বলে জানান তিনি। সম্মিলিতভাবে সামনের দিনগুলোতে আওয়ামী লীগকে আরও এগিয়ে নেয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন তিনি। এদিকে রোববার কমিটির নাম ঘোষণার সময় কমিটিকে দিকনির্দেশনা দেন দলের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। তিনি বলেন, ভবিষ্যতে এই কমিটি নির্বাচন ও আন্দোলনে দৃঢ় ভূমিকা রাখবে। এদিকে দুই মহানগরের সদ্য নির্বাচিত নেতারা গতকাল ধানমন্ডিতে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান। ২০০৮ সালে আওয়ামী লীগ সরকার গঠনের পরপরই সংগঠনকে গতিশীল করতে ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগকে দুই ভাগে বিভক্ত করার উদ্যোগ নেয়। ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনের পরে উত্তরে কর্নেল (অব.) ফারুক খান এবং দক্ষিণে ড. আব্দুর রাজ্জাককে দায়িত্ব দেয়া হয়েছিল নগরের কমিটি সমন্বয় করতে। দলের কেন্দ্রীয় কমিটির এই দুই সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে দল সমর্থিত দুই প্রার্থীর নির্বাচনী সমন্বয়ক হিসেবে কাজ করেছিলেন। দায়িত্ব নিয়ে তারা দুই ভাগে নগরের উত্তর ও দক্ষিণের কমিটি এবং নগরের থানা, ওয়ার্ড ও ইউনিয়ন কমিটির খসড়া তালিকা প্রধানমন্ত্রীর কাছে জমা দেন গত সেপ্টেম্বরে। প্রায় সাড়ে নয় বছর পর ২০১২ সালের ২৭শে ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হয় ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলন। কাউন্সিলররা দলীয় প্রধানকে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনের ক্ষমতা দেন।

Please follow and like us:

পাঠক গনন যন্ত্র

  • 4498953আজকের পাঠক সংখ্যা::
  • 10এখন আমাদের সাথে আছেন::

সর্বশেষ খবর

এ বিভাগের আরও খবর

প্রধান সম্পাদক- খোরশেদ আলম চৌধুরী, সম্পাদক- আশরাফুল ইসলাম জয়,  উপদেষ্টা সম্পাদক- নজরুল ইসলাম চৌধুরী।

প্রধান সম্পাদক কর্তৃক  প্রচারিত ও প্রকাশিত

ঢাকা অফিস : রোড # ১৩, নিকুঞ্জ - ২, খিলক্ষেত, ঢাকা-১২২৯,

সম্পাদক - ০১৫২১৩৬৯৭২৭,০১৮৮০৯২০৭১৩

Email-dailynayaalo@gmail.com নিউজ রুম।

Email-Cvnayaalo@gmail.com সিভি জমা।

 

সাইট উন্নয়নেঃ ICTSYLHET