১৬ই অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, শনিবার, ৩১শে আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ৯ই রবিউল আউয়াল, ১৪৪৩ হিজরি

শিরোনামঃ-

মুরাদনগরে ২২৬ জন এইচএসসি পরীক্ষার্থীর কান্না থামিয়ে দিলেন ইউএনও

Khorshed Alam Chowdhury

আপডেট টাইম : এপ্রিল ১২ ২০১৬, ১৪:৩৫ | 716 বার পঠিত

comilla-map ষ্টাফ রিপোর্টারঃ
যথা সময়ে ঘন্টা পরেছে। শিক্ষার্থী দাড়িয়ে গেছেন প্রশ্ন নেয়ার জন্য। সেই মুহূর্তেই শুরু হলো হইহুলুর। ছাত্র-ছাত্রীরা চিৎকার করে বলে এ তো আমাদের নৈমিত্তিক প্রশ্ন নয়। এটা রচনা মূলক প্রশ্ন। কর্তৃপক্ষের টনক তখন নরেছে, প্রশ্ন রয়েছে থানায়। কি করি উপায়। কলেজ থেকে থানার দূরত্ব ১২ কিলোমিটার। আসা যাওয়ায় ২৪ কিলো। এতক্ষনে এখবর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কানে চলে আসে। তিনি তাৎক্ষনিক থানায় গিয়ে প্রশ্ন নিয়ে পরিক্ষার কেন্দ্রে হাজির হন। এরই মধ্যে ১৫ মিনিট অতিবাহিত হয়ে গেছে। এ দায়িত্বহীন ঘটনা কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার বাশঁকাইট ব্যারিষ্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া ডিগ্রী কলেজে ঘটেছে।
গতকাল মঙ্গলবার তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয় পরিক্ষায় ওই ঘটনা ঘটে। পরে নির্বাহী কর্মকর্তা পরিক্ষা কমিটির আহব্বায়ককে বরখাস্ত করেন দায়িত্ব থেকে।
কলেজ সূত্র জানায়, গতকাল তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ে পরিক্ষার্থী ছিলেন ২২৬জন। আমাদের অধ্যক্ষ থাকেন ঢাকায়। প্রায় সময় তিনি আসতে লেইট হয় কলেজে। দুজন পরিচালনা পর্ষদের মেম্বার নিয়ে নিজের মতো করে কলেজ চালান তিনি। মাসে মাসে মিটিং হওয়ার কথা থাকলেও গত ২০ মাসে ১টি মিটিংও হয়নি পরিচালনা পর্ষদের। আর পরিক্ষা কমিটির আহব্বয়ক বয়স্ক মানুষ, মাঝে মধ্যে তাঁর হিত, বিপরীত হয়ে যায়। অধ্যক্ষ সাহেব যদি বিষয়টি তদারকি করতেন তা হলে এই ঘটনা ঘটতো না।
জানা যায়, চলতি এইচ এসসি পরিক্ষার প্রশ্ন পত্র সংগ্রহের ব্যাপারে অসহযোগিতার কারণে (০৫.৪২.১৯৮১.০০০৩১.০০৮.২০১৬-১৯৮সারক নং) ওই কলেজের অধ্যক্ষ আ: ওয়াদুদ কে শোকচ করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা। পরে অধ্যক্ষ ওয়াদুদ ওই কর্মকর্তাকে মেনেজ করেন। অভিযোগ উঠেছে, গত কালের এই ঘটনাও মেনেজ করার পায়তারা করছেন তিনি।
ওই কলেজের পরিচলনা পর্ষদের মেম্বার লিটন কুমার ভৌমিক বলেন, নৈমেত্তিক প্রশ্ন আনা হয়নি এমন খবর কেন্দ্রে ছড়িয়ে পরলে অনেক পরিক্ষার্থী কান্নকাটি শুরু করে। আবার অনেকেই বিচলিত হয়ে পরে, ফলে আশানুরুপ ভাল করতে পারিনী এই পরিক্ষার্থীরা। তবে আমাদের ইউএনও মহোদয়কে আমরা অন্তরিক ধন্যবাদ জানিয়েছি এই সুন্দর পদক্ষেপের জন্য।
বাঁশকাইট কলেজের অধ্যক্ষ আব্দুল ওয়াদুদ’এ মুঠো ফোন বন্ধ থাকায় এই বিষয়ে তাঁর কোন মন্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।
কলেজের পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি ইউছুফ আব্দুল্লাহ হারুন এমপির মুঠো ফোনে একাদিক বার চেষ্টা করেও এই বিষয়ে মন্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।
মুরাদনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মনসুর উদ্দিন বলেন, পরিক্ষর প্রশ্নপত্র টেজারী থেকে আনার ব্যাপারেও অসহযোগিতা করেছিলেন ওই অধ্যক্ষ। যোগাযোগ ও তথ্য প্রযোক্তির নৈমিত্তি প্রশ্ন না নিয়েই পরিক্ষা শুরু করেছিলেন তিনি। পরে খবর পেয়ে প্রশ্ন নিয়ে ছুটে যাই পরিক্ষা কেন্দ্রে। পরিক্ষার আহবায়কে বরখাস্ত করেছি। পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়ার প্রক্রিয়া চলছে।

Please follow and like us:

পাঠক গনন যন্ত্র

  • 4751405আজকের পাঠক সংখ্যা::
  • 7এখন আমাদের সাথে আছেন::

সর্বশেষ খবর

এ বিভাগের আরও খবর

প্রধান সম্পাদক- খোরশেদ আলম চৌধুরী, সম্পাদক- আশরাফুল ইসলাম জয়,  উপদেষ্টা সম্পাদক- নজরুল ইসলাম চৌধুরী।

প্রধান সম্পাদক কর্তৃক  প্রচারিত ও প্রকাশিত

ঢাকা অফিস : রোড # ১৩, নিকুঞ্জ - ২, খিলক্ষেত, ঢাকা-১২২৯,

সম্পাদক - ০১৫২১৩৬৯৭২৭,০১৮৮০৯২০৭১৩

Email-dailynayaalo@gmail.com নিউজ রুম।

Email-Cvnayaalo@gmail.com সিভি জমা।

 

 

সাইট উন্নয়নেঃ ICTSYLHET