২৫শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, রবিবার, ১০ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৪ই জিলহজ, ১৪৪২ হিজরি

শিরোনামঃ-

মেঘনা-ধনাগোদা সেচ প্রকল্প জলাবদ্ধতায় ধানগাছ পচে যাওয়ার শঙ্কা

Khorshed Alam Chowdhury

আপডেট টাইম : আগস্ট ৩০ ২০১৬, ০২:০৭ | 674 বার পঠিত

মনিরুল ইসলাম মনির :
চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলার মেঘনা-ধনাগোদা সেচ প্রকল্পের তিন হাজার হেক্টর জমির ধান খেতে স্থায়ী জলাবদ্ধতা দেখা দিয়েছে। ধানগাছ পচে যাওয়ার আশঙ্কা করছেন চাষিরা। চার কারণে পানি নিষ্কাশন করা যাচ্ছে না বলে জানিয়েছে প্রকল্প কর্তৃপক্ষ।
উপজেলা কৃষি কার্যালয় ও চাঁদপুর পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, মেঘনা-ধনাগোদা সেচ প্রকল্পে মোট জমির পরিমাণ ১৯ হাজার হেক্টর। আবাদি জমির পরিমাণ ১৩ হাজার হেক্টর। চলতি মৌসুমে প্রকল্পের ৬ হাজার ৭০০ হেক্টর জমিতে আমন ধানের চারা লাগানো হয়। রোপা আউশ লাগানো হয় ৪ হাজার হেক্টর জমিতে। গত কয়েক দিনের ভারী বৃষ্টিপাতে প্রকল্পের দুই হাজার হেক্টর জমির আমন ও এক হাজার হেক্টর জমির আউশ ধান খেতে স্থায়ী ভাবে জলাবদ্ধতা দেখা দিয়েছে।
প্রকল্পের দক্ষিণ ও উত্তর ফতেপুর, ঠেটালিয়া, সিপাইকান্দি, আমুয়াকান্দা, সুজাতপুর, চরপাথালিয়া, বড় ও ছোট হলদিয়া, গজরা, লুধুয়া ও ছৈয়ালকান্দি এলাকা ঘুরে দেখা যায়, বেশ কিছু ধান খেত এক-দেড় ফুট জলাবদ্ধ। পচতে শুরু করেছে ধানগাছ।
আবুরকান্দি এলাকার চাষি মানিক বলেন, আমার জমিনের আউশ-আমন ধানগাছের মাথা পর্যন্ত পানি। পানি সরানোর জন্য হেগো (সেচ প্রকল্পের কর্তৃপক্ষ) বইল্লাও কাম অইতাছে না। তাড়াতাড়ি পানি না সরাইলে সব ধানগাছ মইরা যাইব। এক রত্তি ধানও পামু না। খুবই দুশ্চিন্তা করতাছি।
প্রকল্পের পানি ব্যবহারকারী ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক সরকার মো. আলাউদ্দিন বলেন, প্রকল্পের অনেক এলাকায় প্রভাবশালী ব্যক্তিরা সেচ খাল ও জলাশয় ভরাট করে বাড়ি বানিয়েছেন। কিছু সেচ খালে কচুরিপানার জট লেগে আছে। পানি সরতে না পারায় প্রকল্পে স্থায়ী জলাবদ্ধতা বিরাজ করছে।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে উপজেলা কৃষি কার্যালয়ের একজন উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা বলেন, গত এক মাসে প্রকল্পের অন্তত তিন হাজার হেক্টর ধানি জমিতে জলাবদ্ধতা লেগেই আছে। ওই পানি সরাতে সেচ প্রল্পের কর্তৃপক্ষকে বলা হলেও কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে না।
মেঘনা-ধনাগোদ সেচ প্রকল্পের দায়িত্বে থাকা চাঁদপুর পাউবোর যান্ত্রিক প্রকৌশলী মো. শওকত আলী বলেন, কালিপুর ও গাজীপুরে স্থাপিত দু’টি পাম্প হাউস পানি নিষ্কাশন করছে। কিছু সেচ খাল ও জলাশয় ভরাট করে বাড়ি তৈরি, সেচ খালে কচুরিপানার জট, কৃষিজমিতে অপরিকল্পিত বাড়ি ও স্থাপনা নির্মাণের কারণে পানিনিষ্কাশন বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। এ ছাড়া ঘন ঘন লোডশেডিং থাকায় সার্বক্ষণিক পাম্ম চালানো যাচ্ছে না। উল্লিখিত চার কারণে প্রকল্পে জলাবদ্ধতার সমস্যা সমাধান হচ্ছে না। তবে জলাবদ্ধতা নিরসনে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Please follow and like us:

পাঠক গনন যন্ত্র

  • 4645630আজকের পাঠক সংখ্যা::
  • 3এখন আমাদের সাথে আছেন::

সর্বশেষ খবর

এ বিভাগের আরও খবর

প্রধান সম্পাদক- খোরশেদ আলম চৌধুরী, সম্পাদক- আশরাফুল ইসলাম জয়,  উপদেষ্টা সম্পাদক- নজরুল ইসলাম চৌধুরী।

প্রধান সম্পাদক কর্তৃক  প্রচারিত ও প্রকাশিত

ঢাকা অফিস : রোড # ১৩, নিকুঞ্জ - ২, খিলক্ষেত, ঢাকা-১২২৯,

সম্পাদক - ০১৫২১৩৬৯৭২৭,০১৮৮০৯২০৭১৩

Email-dailynayaalo@gmail.com নিউজ রুম।

Email-Cvnayaalo@gmail.com সিভি জমা।

 

 

সাইট উন্নয়নেঃ ICTSYLHET