২৬শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, শুক্রবার, ১৩ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১৩ই রজব, ১৪৪২ হিজরি

শিরোনামঃ-
  • হোম
  • সকল সংবাদ
  • লক্ষ্মীপুরের ৭মাস পর উদ্ধার তরুণীর লাশের পরিচয় মিলেছে, খুনী স্বামী হারুন

লক্ষ্মীপুরের ৭মাস পর উদ্ধার তরুণীর লাশের পরিচয় মিলেছে, খুনী স্বামী হারুন

হুমায়ন আরাফাত, আশুলিয়া করেসপন্ডেন্ট।

আপডেট টাইম : জুন ১৫ ২০১৭, ২২:০০ | 617 বার পঠিত

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি ঃ

ফেসবুকে প্রকাশিত লাশের ছবির সুত্রধরে লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার সুতার গোপটার অদুরে দূর্গম ধান ক্ষেত থেকে উদ্ধার তরুণীর লাশের পরিচয় ৭ মাস পরে পাওয়াগেছে।নিহত তরুণীর নাম আয়েশা আক্তার লিপি। তার পার্শ্বের ঘাষি গ্রামের তাছলিমা গত ৩জুন রাতে নিজ ফেসবুকে লক্ষ্মীপুরের এনজিও কর্মকর্তা নুর মোহাম্মদের আইডি থেকে পোষ্ট করা অজ্ঞাত লাশের ছবি দেখে বান্ধবী আয়েশা আক্তারের লাশের ছবি সনাক্ত করে রাতেই নানাকে সাথে নিয়ে গিয়ে লিপিদের বাড়িতে গিয়ে খবর দেয়। লিপির গ্রামের বাড়ি কুমিল্লা জেলার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার জগমোহন পুর গ্রামে। তার পিতার নাম আসলাম মিয়া, মায়ের নাম নিলুপা আক্তার। হত দরিদ্র আসলাম মিয়ার দুই মেয়ে ১ ছেলের মধ্যে লিপি ছিল সবার বড়। এইচ এস সি পর্যন্ত পডুয়া লিপি চাকুরী করত কুমিল্লা ইপিজেডের ইয়াং থাই সুয়েটার ফ্যাক্টরীতে। লিপিই ছিল পরিবারের একমাত্র উপার্জনকারি ব্যক্তি। চাকুরীর সুবাধে একই প্রতিষ্ঠানের সিকিউরিটি গার্ড কমল নগরের কাল কিনি গ্রামের ছৈয়াল বাড়ির নুর মোহাম্মদের ছেলে হারুন প্রকাশ আবু সাঈদ সাথে সম্পর্ক গড়ে উঠে লিপির। গত বছরের ৯ সেপ্টেম্বর কুমিল্লার সিটি কর্পোরেশনের ১৩ নং ওয়ার্ড কোতয়ালী থানার কাজী জহিরুল ইসলামের মাধ্যমে ৩ লাখ টাকা দেন মোহরে আবু সাঈদের সাথে লিপির বিয়ে হয় গত বছর ৯ সেপ্টেম্বর তবে সে কাবিনে আবু সাঈদ ও তার সহযোগীরা প্রকৃত ঠিকানা গোপন করে চাঁদপুরের কচুয়ার আনন্দপুর গ্রামের ঠিকানা দেয়। বিয়ের পর আবু সাঈদ স্ত্রীকে সাথে করে পর পর তিনবার শ্বশুর বাড়িতে বেড়ায়ে আসেন। তার আচার আচরণে তারা বুঝতে পারেনি আসলে হারুন প্রকাশ আবু সাঈদ একজন প্রতারক। তারা তখনো জানতে পারেনি হারুন প্রকাশ আবু সাঈদ তার প্রকৃত ঠিকানা গোপন করে বিয়ে করেছে। সর্বশেষ গত ৮ নভেম্বর স্ত্রী আয়েশা আক্তার লিপিকে নিয়ে ভারতের কলকাতায় থাকা কথিত ভাইয়ের বাসায় বেড়াতে যাওয়ার কথা বলে বের হয়ে আসে হারুন প্রকাশ আবু সাঈদ। সাথে তার সঞ্চিত দেড় লাখ টাকা ও যাবতীয় স্বর্ণালংকার এবং পার্সপোর্ট নিয়ে আসে। সে সময় আবু সাঈদ জানায় কলকাতা বেড়ানোর পর সে স্ত্রীকে সাথে করে চাকুরীর উদ্দেশ্যে জাপান যাবে। মোবাইল নাম্বার নেওয়া পর্যন্ত শ্বশুর শ্বাশুড়ীর সাথে ১০/১৫দিন যোগাযোগ বন্ধ থাকবে। সড়ক পথে সে কলকাতা যাওয়ার কথা বললেও কৌশলে সে ভবানীগঞ্জ চৌরাস্তার দক্ষিণে এনে কিলার দুই সহেলের কাছে স্ত্রীকে তুলে দেয়। তারা লিপিকে ধর্ষনে ব্যর্থ হয়ে ক্ষুদ্ধ হয়ে শ্বাস রোধ করে হত্যা করে। এ দিকে কিন্তু দীর্ঘ দিনেও তাদের সন্ধান না পেয়ে আয়েশা আক্তার লিপির বাবা বাদী হয়ে কাবিনে উল্লেখিত ঠিকানা উল্লেখ পূর্বক কমিল্লার চৌদ্দগ্রাম থানায় একটি সাধারণ ডায়রী করে। যার নং ১০৮৮তারিখ ২৭ নভেম্বর ২০১৬ ইং। কুমিল্লা ইপি জেড ইয়াং থাই সুয়েটারের সিকিউরিটি ম্যানেজার সরবরাহকৃত ঠিকানায় পরবর্তীতে আবু সাঈদের নাম নুর হোসেন/আবুল হোসেন গ্রাম চর কালকিনি হোসেন জমাদার বাড়ি কমল নগর লক্ষ্মীপুর সরবরাহ করলেও এটাও তার প্রকৃত নাম এবং ঠিকানা নয় বলে জানাগেছে। অনুসন্ধানে জানাযায় চরকালকিনি গ্রামের আবু সাঈদের জম্ম নিবন্ধন সনদ নিয়ে প্রতি বেশী ছৈয়াল বাড়ির নুর মোহাম্মদের ছেলে হারুনন কুমিল্লা ইপি জেডে চাকুরী নিয়েছে। সরেজমিনে এলাকায় গিয়ে জানাযায় এই হারুন ছোট বেলা থেকে চুরি চামারি সহ নানা অপরাধে জড়িয়ে পড়ে। এর কারণে অতীষ্ঠ মা বাবা তাকে ৮/৬/২০০৬ সালে একটি এফিডেভিটের মাধ্যমে ত্যাজ্যপুত্র করে। এলাকাবাসী জানায় সে মেয়েদের কৌশলে প্রেমের ফাঁদে ফেলে বিয়ে করে মেয়েদের সব কিছু নিয়ে সটকে পড়ে। এলাকাবাসী জানায় সে একজন পেশাদার কিলার। সে চুক্তিতে মানুষ খুন করে। তাকে গ্রেপ্তার করাগেলে অনেক খুনের রহস্য বেরিয়ে আসবে।

গত বছর ৯ নভেম্বর দুপুরে স্থানীয় লোকজন ধান ক্ষেত দেখতে গিয়ে চরমনসা সুতার গোপটা থেকে প্রায় দেড় কিলো মিটার পূর্বদিকে কইরাইজ্জা বুইড়ইয়ার তালগাছের কাছের একটি ধান ক্ষেতের পার্শ্বের একটি ড্রেন থেকে অজ্ঞাত নামা তরুণী (২৫) এর লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেন সদর থানার এস আই জাহাঙ্গীর। পরবর্তীতে জাহাঙ্গীর বাদী হয়ে সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করে। পরবর্তীতে এস আই জাহাঙ্গীর চরভূমি গ্রামের সিরাজ আনসারের পুত্র সহেল(৩৩) ও লক্ষ্মীপুর পৌর সভার মধ্য বাঞ্চা নগর গ্রামের আবুল কাশেমের পুত্র সোহেল(২৩) কে গ্রেপ্তার করে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তারা জানায় গত ৮ নভেম্বর দিবাগত রাতে ভবানীঞ্জ বাজারের দক্ষিনে মেইন রোডের উপর মেয়েটিকে গভীর রাতে তুলে নিয়ে সিসি রুবেলের খামারে যায়। সেখানে মেয়েটিকে নিয়ে ধর্ষনে ব্যর্থ হয়ে ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে শ্বাস রোধ করে হত্যা করে লাশ ঘটনাস্থলে ফেলে রেখে যায়।

Please follow and like us:

পাঠক গনন যন্ত্র

  • 4385772আজকের পাঠক সংখ্যা::
  • 0এখন আমাদের সাথে আছেন::

সর্বশেষ খবর

এ বিভাগের আরও খবর

প্রধান সম্পাদক- খোরশেদ আলম চৌধুরী, সম্পাদক- আশরাফুল ইসলাম জয়,  উপদেষ্টা সম্পাদক- নজরুল ইসলাম চৌধুরী।

ঢাকা অফিস : রোড # ১৩, নিকুঞ্জ - ২, খিলক্ষেত, ঢাকা-১২২৯,

সম্পাদক - ০১৫২১৩৬৯৭২৭,০১৮৮০৯২০৭১৩

Email-dailynayaalo@gmail.com

প্রধান সম্পাদক কর্তৃক  প্রচারিত ও প্রকাশিত

সাইট উন্নয়নেঃ ICTSYLHET