৩১শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, শনিবার, ১৬ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২০শে জিলহজ, ১৪৪২ হিজরি

শিরোনামঃ-
  • হোম
  • সকল সংবাদ
  • সিরাজগঞ্জ বেলকুচিতে নূর দাওয়াখানায় চিকিৎসার নামে অপচিকিৎসা করার অভিযোগ

সিরাজগঞ্জ বেলকুচিতে নূর দাওয়াখানায় চিকিৎসার নামে অপচিকিৎসা করার অভিযোগ

Khorshed Alam Chowdhury

আপডেট টাইম : আগস্ট ০৮ ২০১৬, ২০:১১ | 661 বার পঠিত

Sirajganjএস, এম. আশরাফুল ইসলাম (জয়) সিরাজগঞ্জ থেকে। সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার বেলকুচি তামাই বাজারে অবস্থিত নূর দাওয়াখানার বিরুদ্ধে চিকিৎসার নামে অপচিকিৎসা দিয়ে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে এতে এলাকার সহজ সরল হাজারও রোগী প্রতারণার শিকার হচ্ছে প্রায় প্রতিনিয়ত। নিজের মনগড়ামত অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে প্রস্তুতকৃত ওষুধ নামের বিষ বিক্রি করায় এ এলাকার মানুষ গুলো অপচিকিৎসায় আরো জটিল রোগে আক্রান্ত হলেও সংশি¬ষ্ট ওষুধ প্রশাসনের নিরব ভূমিকায় রয়েছে। অভিযোগে জানাযায়, বেলকুচি খামার উল্লাপাড়ার মৃত হোসেন আলীর পুত্র জামাল সেখ ও তামাই গ্রামের হাকিম মুসুল্লীর পুত্র বুলবুল (বাবু) অক্ষর জ্ঞানহীন, ও সনদ বিহীন নূর দাওয়াখানায় হরেক রকমের রোগ নিরাময়ের তথাকথিত কবিরাজের চেম্বার। তামাই গ্রামের রেবেকা বেগম, আলেয়া বেগম, আকলিমা খাতুন, অভিযোগ করে বলেন আমরা সাদা ¯্রাব চিকিৎসার জন্য নূর দাওয়াখানায় গেলে জামাল সেখ গরু মোটাতাজা করনের, ট্যাবলেট, এ্যালোপ্যাথিক ট্যাবলেট ক্যাপসুল গুড়া করে এবং তার সাথে গাছ গাছড়ার চামড়ায় রস দিয়ে হালুয়া সিরাপও বিভিন্ন রকমের বড়ি তৈরি করে দেন পরে আমাদের অবস্থা অবনতি হলে পড়ে জানতে পারি জামাল সেখ একজন অক্ষর জ্ঞানহীন, ও সনদ বিহীন ভুওয়া ডাক্টার। এছারাউ নেশা জাতীয় ও যৌন উত্তেজক ঔষুধসহ বিভিন্ন নিষিদ্ধ ঔষুধ বিক্রি করা হচ্ছে। সকল রোগ নিরাময়ে ১০০% গ্যারান্টি! বিনা অপারেশনে মাত্র ৫মিনিটে নাকের পলিপস,নাকের ভিতর গোটা, নাকের হাড়ভাঙ্গা, মাংস বৃদ্ধি,অর্শ্ব ভগন্দর ইত্যাদি রোগ নিরাময় করা হয়। বাত, জ্বর,র্সদি, কাশি, চর্ম, যৌন, মাথা ব্যথা ও হাপাঁনিসহ মেডিকেল আনফিট রোগী ফিট করা হয়। ৩ ঘন্টায় যৌন রোগের উপকার ২১ দিনে স্থায়ী চিকিৎসা বলে প্রকাশ্যে কাড়ি কাড়ি টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। নূর দাওয়াখানার হেকিম জামাল সেখ জানান, মেডিসিন তৈরিতে তার কোন অভিজ্ঞতা কিংবা সনদ নেই। সে দীর্ঘদিন যাবত এ ব্যবসাটি পৈতৃকসূত্রে পেয়ে চালিয়ে আসছে। বাবার সাথে থেকে তিনি মেডিসিন তৈরির কাজ করেছিলেন। তিনি আরও বলেন ভেজষ ও আয়ুর্বেদিক ঔষুধের কোন পার্শ¦পতিক্রিয়া নেই। তাই মানুষের কোন উপকার না হলেও ক্ষতির কোন সম্ভাব্না নেই। সরকার অনুমোদিত কোন কাগজপত্র না থাকলেও তিনি দিনের পর দিন এ ব্যবসায় চালিয়ে আসছেন। এই নূর দাওয়াখানার মূল হতা জিধুরী গ্রামের বক্কার হোসেনের পুত্র আল-আমিন, তামাই গ্রামের হাকিম মুসুল্লীর পুত্র বুলবুল (বাবু), কেরামত আলী, শহরবানু, লাকী বেগম, হোসনে আরা, সাবিনা বেগম ও এলাকার কিছু প্রভাবশালির সহ-যোগিতায় গপনে ওই নূর দাওয়াখানায় মাদক দ্রব্য বিক্রয় হচ্ছে বলে অভিযোগে জানাযায়। উলে¬খ্য যে, ১৯৮২ সালের ঔষুধ অধ্যাদেশ অনুযায়ী দাওয়াখানা চিকিৎসার মাধ্যমে রোগ নিরাময়ের গ্যারান্টি দিলে ১১৪ ধারা অনুযায়ী সর্বোচ্চ ৩ বছরের কারাদন্ড, ২ লাখ টাকা জরিমানা অথবা উভয় দন্ডে দন্ডিতের বিধান রয়েছে তবে বাস্তবে এসব আইনের প্রয়োগ নেই বললেই চলে বেলকুচির সর্বশান্ত রোগীরা সংশি¬ষ্ট ঔষুধ প্রশাসনের হস্তপে কামনা করেন।

Please follow and like us:

পাঠক গনন যন্ত্র

  • 4658010আজকের পাঠক সংখ্যা::
  • 5এখন আমাদের সাথে আছেন::

সর্বশেষ খবর

এ বিভাগের আরও খবর

প্রধান সম্পাদক- খোরশেদ আলম চৌধুরী, সম্পাদক- আশরাফুল ইসলাম জয়,  উপদেষ্টা সম্পাদক- নজরুল ইসলাম চৌধুরী।

প্রধান সম্পাদক কর্তৃক  প্রচারিত ও প্রকাশিত

ঢাকা অফিস : রোড # ১৩, নিকুঞ্জ - ২, খিলক্ষেত, ঢাকা-১২২৯,

সম্পাদক - ০১৫২১৩৬৯৭২৭,০১৮৮০৯২০৭১৩

Email-dailynayaalo@gmail.com নিউজ রুম।

Email-Cvnayaalo@gmail.com সিভি জমা।

 

 

সাইট উন্নয়নেঃ ICTSYLHET