২৯শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, বৃহস্পতিবার, ১৪ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৮ই জিলহজ, ১৪৪২ হিজরি

শিরোনামঃ-
  • হোম
  • সকল সংবাদ
  • হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তার টালবাহানা ও অনিয়মের প্রতিবাদে বঞ্চিত শিক্ষকদের অবস্থান ধর্মঘট

হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তার টালবাহানা ও অনিয়মের প্রতিবাদে বঞ্চিত শিক্ষকদের অবস্থান ধর্মঘট

মোঃ আবু শহীদ, ফুলবাড়ী,দিনাজপুর করেসপন্ডেন্ট।

আপডেট টাইম : জুন ১৩ ২০২১, ১৬:৪৫ | 675 বার পঠিত

দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে ১৩তম গ্রেডের বেতন বঞ্চিত সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা উপজেলা হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তার টালবাহানা ও অনিয়মের প্রতিবাদে অবস্থান ধর্মঘট পালন করেছেন।
গতকাল ১৩ ই জুন রোববার সকাল ১১টায় উপজেলা পরিষদ চত্তরে এই অবস্থান কর্মসূচী ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেন উপজেলার প্রায় ৫শতাধিক শিক্ষক।
শিক্ষকদের অভিযোগ,হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তার অনিয়ম ও টালবাহানার কারণে দীর্ঘদিন ধরে সরকারী বর্ধিত বেতনের অংশ পাচ্ছেন না উপজেলার সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রায় পাঁচশ শিক্ষক। এ ঘটনায় বঞ্চিতদের মাঝে অনেকটা ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। তারা হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তার এমন আচারনের বিষয়টি ইতিমধ্যে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা চেয়ারম্যানসহ বিভিন্ন দপ্তরে অবহিত করেও কোন প্রতিকার পাননি ।
খোঁজ-নিয়ে জানাগেছে, ২০১৯ সালে দেশব্যাপী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা তাদের উন্নিত গ্রেড-স্কেল পাওয়ার দাবীতে আন্দোলন শুরু করেন। তার ধারাবাহিকতায় ২০২০ সালের ৯ ফেব্রæয়ারী দেশের সকল বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকদের ১৩তম গ্রেডে উন্নিত করার নির্দেশ দেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। কিন্তু সরকারী ওই নির্দেশকে বৃদ্ধাগুলী দেখিয়ে ফুলবাড়ী উপজেলা হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা ফাতেমা জোহরা উপজেলার ৭টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভার ১১০টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রায় পাঁচশ শিক্ষককে নানা ভাবে হয়রানি শুরু করেন।
উপজেলার জাফরপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকসহ ধর্মঘটে অংশ নেওয়া শিক্ষকরা অভিযোগ করে বলেন, মন্ত্রণালয়ের নির্দেশের পর দিনাজপুর জেলার অন্যান্য উপজেলায় ইতিমধ্যে ১৩ তম গ্রেডের কাজ সমাপ্ত করা হয়েছে এবং উপকার ভোগীরা এর সুফলও পাচ্ছেন অথচ ফুলবাড়ী উপজেলার সকল শিক্ষকরা তাদের উন্নিত গ্রেড পেতে প্রয়োজনীয় কাগজ পত্র উপজেলা হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তার কার্যালয়ে জমা দিলেও তিনি নানা অজুহাতে কালক্ষেপন করছেন।
শিক্ষকরা তাদের বক্তব্যে বলেন,হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তার অফিসে গেলে তিনি তাদের সাথে অসাদাচারন করেন এবং তিনি কারও নির্দেশ পালন করতে বাধ্য নয় বলেও জানান। উপজেলা হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তার হয়রানির শিকার শিক্ষকরা টাকা ছাড়া সেখানে কোন কাজ করতে পারেননা। বলা যায় উপজেলা হিসাব কার্যালয়টি এক প্রকার দুর্নীতির আখড়ায় পরিনত হয়েছে। সম্প্রতি ওই কর্মকর্তার একটি দালাল চক্রের মাধ্যমে গ্রেড উন্নতির কাজের জন্য প্রত্যেক শিক্ষকের কাছে এক হাজার টাকা করে ঘুষ দাবী করেন। ওই চক্রের দাবী না মানায় দীর্ঘদিন ধরে নানা ভাবে হয়রানির শিকার হচ্ছেন তারা এমনটিই তাদের বক্তব্যে জানান তারা। তাই দূর্নীতিবাজ ওই কর্মকর্তার অপসারন দাবী করে অবস্থান ধর্মঘট ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেন তারা। পরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার হস্তক্ষেপে ধর্মঘট প্রত্যাহার করে নেন শিক্ষকরা।
তবে,এসব বিষয়ে, জানতে চাইলে হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা ফাতেমা জোহরা মুঠোফোনে বলেন,শিক্ষকদের এসব অভিযোগ অসত্য,ভিত্তিহীন ও বানোয়াট। তিনি কখনই কোন শিক্ষকের কাছে টাকা দাবী করেননি,তার অফিসের কেউ যদি টাকা চেয়ে থাকেন সেটিও তাকে জানাননি শিক্ষকরা। তিনি বলেন,উপজেলার ৪৮২টি শিক্ষকের বইয়ের মধ্যে তার অফিসে জমা হয়েছে ১৮০টি বই। এরমধ্যে তিনি ৭০টি বইয়ের কাজ ইতিমধ্যে সম্পন্ন করেছেন,৬০টি বইয়ের কাজ চলছে এবং ১০৩টি বইয়ের সমস্যা থাকায় ফেরত পাঠানো হয়েছে বলেও জানান তিনি।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রিয়াজ উদ্দিন জানান,প্রাথমিক শিক্ষকদের ১৩ তম গ্রেডে উন্নিত করণের বিষয়ে যে জটিলতা তৈরী হয়েছিল এটি একটি ভূল বোঝাবুঝি। আগামী সপ্তাহের মধ্যে এই সমস্যার সমাধান হবে এবং শিক্ষকরাও তাদের বর্ধিত বেতনের অংশ পাবেন বলে জানান তিনি।

Please follow and like us:

পাঠক গনন যন্ত্র

  • 4655283আজকের পাঠক সংখ্যা::
  • 8এখন আমাদের সাথে আছেন::

সর্বশেষ খবর

এ বিভাগের আরও খবর

প্রধান সম্পাদক- খোরশেদ আলম চৌধুরী, সম্পাদক- আশরাফুল ইসলাম জয়,  উপদেষ্টা সম্পাদক- নজরুল ইসলাম চৌধুরী।

প্রধান সম্পাদক কর্তৃক  প্রচারিত ও প্রকাশিত

ঢাকা অফিস : রোড # ১৩, নিকুঞ্জ - ২, খিলক্ষেত, ঢাকা-১২২৯,

সম্পাদক - ০১৫২১৩৬৯৭২৭,০১৮৮০৯২০৭১৩

Email-dailynayaalo@gmail.com নিউজ রুম।

Email-Cvnayaalo@gmail.com সিভি জমা।

 

 

সাইট উন্নয়নেঃ ICTSYLHET