২৩শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, মঙ্গলবার, ৮ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৬ই মহর্‌রম, ১৪৪৬ হিজরি

শিরোনামঃ-




শ্রীপুরে দুই শিক্ষক দিয়ে চলছে শিক্ষার্থীদের পাঠদান

প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

আপডেট টাইম : ফেব্রুয়ারি ১৮ ২০১৮, ১২:২৪ | 706 বার পঠিত | প্রিন্ট / ইপেপার প্রিন্ট / ইপেপার

সাইফুল আলম সুমন,শ্রীপুর(গাজীপুর)প্রতিনিধিঃ-  গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার গাজীপুর ইউনিয়নের পূর্ব গাজীপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষক সংকটে পাঠদান কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে। বিদ্যালয়টিতে ৩৯৫ জন শিক্ষার্থীর জন্য শিক্ষক আছেন মাত্র দুই জন। এর মধ্যে একজনকে দাফতরিক দায়িত্ব পালন করতে হয়। আর অন্যজন জোড়াতালি দিয়ে চালাচ্ছেন পাঠদান কার্যক্রম। ২০১৫ সালে মূল ভবন জরাজীর্ণ হওয়ায় পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হলেও নতুন ভবন নির্মাণে নেই কোন উদ্যোগ। ফলে খোলা মাঠে চলছে শিক্ষার্থীদের পাঠদান । গত দুই বছর ধরেই এ অবস্থা বিরাজ করছে।

স্থানীয়রা জানান, আশেপাশের ৩ কিলোমিটারের মধ্যে কোনও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান না থাকায় ১৯৬৯ সালে একটি প্রাথমিক বিদ্যালয় গড়ে তোলেন পূর্ব গাজীপুর গ্রামের কিছু সমাজসেবী মানুষ। ১৯৯৪ সালে সরকারিভাবে এ বিদ্যালয়ের ভবন নির্মাণ করা হয়,২০১৩ সালে এ বিদ্যালয়কে সরকারিকরণ করা হয়।
বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ্য জানায়, এ বিদ্যালয়ে পাঁচ জন শিক্ষক থাকার কথা। কিন্তু এখন আছেন দুই জন। এর মধ্যে একজনকে আবার প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব পালন করতে হয়।

শিক্ষার্থীদের একাধিক অভিভাবকদের সাথে কথা বলে জানা যায়, শিক্ষক সংকট থাকায় প্রতিদিন সব ক্লাস হয় না। বিদ্যালয় মাঠে শিক্ষার্থীরা খেলা করে বেশিরভাগ সময় পার করে। আশপাশের ৩ কিলোমিটারের মধ্যে কোনও বিদ্যালয় না থাকায় বাধ্য হয়ে সন্তানদের এ বিদ্যালয়ে ভর্তি করেছেন। কিন্তু এ বিদ্যালয় থেকে ছেলেমেয়েরা কিছু শিখতে পারছে বলে মনে হয় না। পর্যাপ্ত শিক্ষকই নেই, শিখবে কিভাবে।

সহাকারী শিক্ষক তাসলিমা নাসরিন বলেন, কিছুদিন আগেও এ বিদ্যালয়ে চার জন শিক্ষক ছিলেন। গত মাসে সোহেল রানা নামে একজন সহকারী শিক্ষক এক বছরের প্রশিক্ষণে যান। এর আগে নাসরিন আক্তার নামে আরও একজন শিক্ষক ডেপুটেশনে উপজেলার জয়নাতলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চলে যান। প্রায়ই প্রধান শিক্ষক বিদ্যালয়ের কাজে উপজেলা সদরে চলে যান। তখন একা আমাকেই বিদ্যালয় চালাতে হয়। তাছাড়া, দুই জনে ছয় শ্রেণির শিক্ষার্থীদের পাঠদান করানো অনেকটা অসম্ভব। একই সময়ে একাধিক শ্রেণিতে পাঠদানের শিডিউল থাকে। কিন্তু পাঠদান আর করানো হয় না।

ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক আতিকুর রহমান জানান, ভবন নির্মাণের জন্য ইতোমধ্যে দরপত্র আহ্বান করা হয়েছে। এছাড়া শিক্ষক স্বল্পতার ব্যাপারটা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

বিদ্যালয় পরিচালনা পরিষদের সভাপতি আবুল হাসেম প্রধান জানান, গত কয়েক বছর ধরে বিদ্যালয়ে নানা সমস্যা রয়েছে। ভবনটি ঝুঁকি পূর্ণ ঘোষণা করায় বিদ্যালয়ের মাঠে শিক্ষার্থীদের পাঠদান করাতে হয় শিক্ষকদের।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা কামরুল হাসান জানান, বিদ্যালয়টির বিভিন্ন সমস্যার কথা শুনেছি। পাঠদানের পরিবেশ নিশ্চিতে কার্যকর উদ্যোগ নেওয়া হবে।

Please follow and like us:

সর্বশেষ খবর

এ বিভাগের আরও খবর

প্রধান সম্পাদক- খোরশেদ আলম চৌধুরী, সম্পাদক- আশরাফুল ইসলাম জয়,  উপদেষ্টা সম্পাদক- নজরুল ইসলাম চৌধুরী।

প্রধান সম্পাদক কর্তৃক  প্রচারিত ও প্রকাশিত

ঢাকা অফিস : রোড # ১৩, নিকুঞ্জ - ২, খিলক্ষেত, ঢাকা-১২২৯,

সম্পাদক - ০১৫২১৩৬৯৭২৭,০১৬০১৯২০৭১৩

Email-dailynayaalo@gmail.com নিউজ রুম।

Email-Cvnayaalo@gmail.com সিভি জমা।

 

 

সাইট উন্নয়নেঃ ICTSYLHET