২১শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, বুধবার, ৮ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ৮ই রমজান, ১৪৪২ হিজরি

শিরোনামঃ-
  • হোম
  • নাগরিক দূর্ভোগ
  • ডুমুরিয়ায় শালতা নদীর জোয়ারের পানির স্রোতে বাঁধ ভেঙ্গে দু’টি গ্রাম প্লাবিত।গৃহহীন পরিবাররা আশ্রয় নিয়েছে ভাঙ্গা বাঁধের উপর

ডুমুরিয়ায় শালতা নদীর জোয়ারের পানির স্রোতে বাঁধ ভেঙ্গে দু’টি গ্রাম প্লাবিত।গৃহহীন পরিবাররা আশ্রয় নিয়েছে ভাঙ্গা বাঁধের উপর

গাজী আব্দুল কুদ্দুস, চুকনগর.খুলনা করেসপন্ডেন্ট।

আপডেট টাইম : মার্চ ০৩ ২০২১, ১৫:০৬ | 672 বার পঠিত

শালতা নদীর জোয়ারের পানির তীব্র স্রোতে নির্মাণাধীন ভেঁড়িবাঁধ তৃতীয়বারের মত আবারও ভেঙ্গে গিয়ে তলিয়ে গেছে ডুমুরিয়া উপজেলার সাহস ইউয়িনের লতাবুনিয়া ও বাঁশতলা গ্রাম দু’টি। ভেসে গেছে ছোট বড় প্রায় দু’শতাধিক চিংড়ি ঘের সহ সবজি ক্ষেত। গৃহহীন হয়ে পড়া অনেকেই আশ্রয় নিয়েছে ভেঙ্গে যাওয়া ভেঁড়িবাঁধের ওপর। দেখা দিয়েছে খাদ্য ও সু-পেয় পানির তীব্র সংকট।
সরেজমিনে গিয়ে কথা হয় বাঁধের ওপর আশ্রয় নেয়া লতাবুনিয়া গ্রামের সান্তনা মিস্ত্রী,নমিতা রায় ,রবিন রায় সহ অনেকের সাথে। তারা জানান,ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের সময় বাঁধ ভেঙ্গে গ্রাম দু’টি ডুবে যায়। সেই থেকে বাঁধের ওপর বাস করছি। এ পর্ষন্ত কোন সরকারি সাহায্য পাইনি। খাইয়ে না খাইয়ে দিন যাতেছে। কেউ খোঁজ নিনি। আশা করিলাম এবার শুকনোর সময় রাস্তা বান্ধা হলি আবার বাড়ি ফিরে গিয়ে কাজ কাম করে সংসার চালাতি পারবানে। আবার রাস্তা নতুন করে ভাঙ্গে গেছে। আর বাড়ি যায়া হলোনা।
উপজেলা প্রকৌশলী বিদ্যুৎ কুমার দাশ বলেন, গ্রাম দু’টি ব-দ্বীপ আকৃতির । চারিদিকে শালতা ও ভদ্রা নদী দিয়ে বেষ্টিত। প্রায় ৮ কিলোমিটার বেঁড়ি বাঁধ রয়েছে।ঘূর্ণিঝড় আম্ফানে শালতা নদী তীরবর্তী বাঁধ ভেঙ্গে যায়। স্থানীয় ও সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের টেকসই ক্ষুদ্রাকার পানি সম্পদ উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় গ্রাম দু’টি রাস্তাঘাট ১৯ টি এল করা হয়। এরপর টেকসই বাঁধ নির্মানের জন্য সংশ্লিষ্ট বিভাগ থেকে ৮৪ লাখ টাকা বরাদ্দ পাওয়া যায়। সম্প্রতি স্কেভেটর দিয়ে বাঁধ পুনঃনির্মানের কাজ শুরু করা হয়েছে । গত ২৮ ফেব্র“য়ারী রবিবার রাতে শালতা নদীর পাশ দিয়ে নির্মাণনাধীন বাঁধ ভেঙ্গে যায়। নতুন করে কমিটি করা হয়েছে । তাদের মাধ্যমে বর্তমান বাঁধ মেরামতের কাজ করা হচেছ।
লতাবুনিয়া গ্রামের নির্বাচিত ইউপি সদস্য শংকর গাইন জানান, নতুন ও পুরাতন কমিটির মধ্যে দ্বন্দ্ব দেখা দেওয়ায় গত রবিবার সকালে বাঁধের কাজ নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে মারামারি হয়। এতে দিলীপ মন্ডল, সুজিত মন্ডল, সুশান্ত মন্ডল আহত হয়েছে বলে শুনেছি। প্রকল্পের নির্বাচিত কমিটির সভাপতি দিলীপ কুমার মন্ডল বলেন, বাঁধ নির্মানের জন্য সম্প্রতি ৮৪ লাখ টাকা বরাদ্দ হয়েছে। গোপনে একটি কমিটি তৈরি করে ৫১ লাখ টাকায় চুক্তি করে সিডিউল বর্হিভূত নিন্মমানের কাজ করায় পুনরায় বাঁধ ভেঙ্গে এলাকা প্লাবিত হয়ে যায়। এ নিয়ে সন্তোষ মন্ডলের কাছে জানতে চাইলে আমার ভাই সুজিত মন্ডল সহ আমাকে মারপিট করে আহত করে।
স্কেভেটর মালিক রিজাউল করিম বলেন, আমার সাথে ৫১ লাখ টাকায় এল সি এস কমিটির সাথে বাঁধের কাজ নির্মানের চুক্তিবদ্ধ হয়েছে। সে মোতাবেক মাপ দিয়ে প্রায় ৫ কিলোমিটার বাঁধে মাটি দিয়ে পুনঃ নির্মান করেছি। হঠাৎ জোয়ারের পানিতে ৩/৪ স্থানে ভাঙ্গনে ভেঙ্গে গেছে।

Please follow and like us:

পাঠক গনন যন্ত্র

  • 4494799আজকের পাঠক সংখ্যা::
  • 4এখন আমাদের সাথে আছেন::

সর্বশেষ খবর

এ বিভাগের আরও খবর

প্রধান সম্পাদক- খোরশেদ আলম চৌধুরী, সম্পাদক- আশরাফুল ইসলাম জয়,  উপদেষ্টা সম্পাদক- নজরুল ইসলাম চৌধুরী।

প্রধান সম্পাদক কর্তৃক  প্রচারিত ও প্রকাশিত

ঢাকা অফিস : রোড # ১৩, নিকুঞ্জ - ২, খিলক্ষেত, ঢাকা-১২২৯,

সম্পাদক - ০১৫২১৩৬৯৭২৭,০১৮৮০৯২০৭১৩

Email-dailynayaalo@gmail.com নিউজ রুম।

Email-Cvnayaalo@gmail.com সিভি জমা।

 

সাইট উন্নয়নেঃ ICTSYLHET