১৮ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, বৃহস্পতিবার, ৩রা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১১ই মহর্‌রম, ১৪৪৬ হিজরি

শিরোনামঃ-
  • হোম
  • কুমিল্লা
  • নাঙ্গলকোটে ডিগ্রী,অনার্স,মাষ্টার্স পাস করা প্রত্যেকটি ছেলেমেয়ের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করবো-পরিকল্পনামন্ত্রী




নাঙ্গলকোটে ডিগ্রী,অনার্স,মাষ্টার্স পাস করা প্রত্যেকটি ছেলেমেয়ের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করবো-পরিকল্পনামন্ত্রী

প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

আপডেট টাইম : মার্চ ১১ ২০১৮, ১৭:৫৭ | 831 বার পঠিত | প্রিন্ট / ইপেপার প্রিন্ট / ইপেপার

মো:আব্দুর রহিম বাবলু,কুমিল্লা প্রতিনিধি:- কুমিল্লা নাঙ্গলকোটে পেড়িয়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের উদ্যোগে গতকাল ১০ই মার্চ কাকৈরতলা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে ঐতিহাসিক জনসভা অনুষ্ঠিত হয়।অনুষ্ঠানে পেড়িয়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ আহবায়ক মাষ্টার ইসমাঈল হোসেন মজুমদারের সভাপতিত্বে জনসভায় প্রধান প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল এমপি।বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন-নাঙ্গলকোট উপজেলা আওয়ামীলীগ আহবায়ক রফিকুল হোসেন, উপজেলা চেয়ারম্যান সামছুউদ্দিন কালু, নাঙ্গলকোট উপজেলা আওয়ামীলীগ সাবেক সভাপতি ও কুমিল্লা জজকোর্ট পিপি এ্যাডভোকেট মোস্তাফিজুর রহমান লিটন, নাঙ্গলকোট উপজেলা আওয়ামীলীগ যুগ্ম আহবায়ক অধ্যক্ষ সাদেক হোসেন ভুঁইয়া, শাহজাহান বাবলু, কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামীলীগ যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এম এ করিম মজুমদার, নাঙ্গলকোট উপজেলা যুবলীগ আহবায়ক ও পৌর মেয়র আবদুল মালেক, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আবু ইউছুফ ভুঁইয়া, নাঙ্গলকোট উপজেলা আওয়ামীলীগ সাবেক সদস্য ও সাবেক চেয়ারম্যান এম এ হামিদ, পেড়িয়া ইউপি চেয়ারম্যান হুমায়ুন কবির মজুমদার। বক্তব্য রাখেন, উপজেলা ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক ওমর ফারুক মামুন, আওয়ামীলীগ নেতা মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তাক, পেড়িয়া ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি জাহাঙ্গীর হোসেন, যুবলীগ নেতা নজরুল ইসলাম, পেড়িয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সভাপতি আবু ইসহাক প্রমুখ

প্রধান অতিথির বক্তব্যে পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল (লোটাস কামাল) এমপি বলেন- ২০০৮সাল থেকে নাঙ্গলকোটের মানুষকে বিকশিত করার জন্য সাধ্যমত কাজ করে যাচ্ছি। ২০০৮সালের নির্বাচনের পূর্বে নাঙ্গলকোট থেকে আমার নির্বাচন করার কথা ছিল না। আমি সদর দক্ষিণ থেকে নির্বাচন করার জন্য ফরম ক্রয় করেছি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বললেন তোমাকে নাঙ্গলকোট থেকে নির্বাচন করতে হবে। আমি কে এম সিংহ রতনকে নাঙ্গলকোটের ফরমও ক্রয় করতে বলি। আমি মনোনয়ন ফরম জমা দিচ্ছি না। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাকে ডেকে বললেন, তুমি ফরম জমা দিচ্ছ না কেন? তোমাকে কুমিল্লার যে কোন এলাকা থেকে নির্বাচন করতে হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, তুমি ছাড়া অন্য কেউ নাঙ্গলকোটকে উপরে তুলতে পারবে না। আমি নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাকে সহযোগিতা করে যাচ্ছেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, নাঙ্গলকোট পিছিয়ে পড়া এলাকা তুমি কাজ শুরু কর। ২০০৮সালে নাঙ্গলকোটের চাহিদা ছিল বিদ্যুৎ, রাস্তাঘাট, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের উন্নয়ন। আমি সাধ্যমত উন্নয়ন করছি। আমরা আবার নির্বাচিত হলে আমার প্রথম কাজ হবে নাঙ্গলকোটে শতভাগ গ্যাস সংযোগ দেয়া। আমার দ্বিতীয় কাজ হলো এলাকার অসংখ্য ছেলেমেয়ে ডিগ্রী,অনার্স,মাষ্টার্স পাস করা প্রত্যেকটি ছেলেমেয়ের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করবো।
পরিকল্পনামন্ত্রী আরো বলেন-আমি বলেছিলাম সদর দক্ষিণ উপজেলা থেকে নাঙ্গলকোটে কাজ বেশি হবে। আমরা এক পরিবারের এবং এক আত্মার মানুষ। আমাদের বিরুদ্ধে হাজার-হাজার মামলা দেয়া হয়েছে। পুকুরের মাছ লুট করা হয়েছে। বাড়ি ঘরে আগুন দেয়া হয়েছে। ঘর থেকে গরু নিয়ে গেছে। আমরা সেসব ভুলিনি। আমরা তাদেরকে মাফ করে দিয়েছি। আমাদের মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে মানুষকে স্পর্শ করা, মানুষকে নিয়ে এলাকার উন্নয়ন করা। আমি মানুষের মন জানি। আমার অনেক দায়িত্ব। স্বাধীনতা যুদ্ধে যারা দেশের জন্য রক্ত দিয়েছেন, তাদের কাছে আমাদের অনেক ঋণ। বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষন আজকে সব জায়গায় প্রচার হচ্ছে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু স্বপ্ন দেখতেন দেশের অর্থনৈতিক মুক্তি। কিন্তু তাকে শেষ করে দেয়া হয়েছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত সব কাজ শেষ করা হবে। প্রত্যেক দলীয় নেতা-কর্মীদের অনুরোধ করবো আপনারা মানুষের কাছে যান। আপনারা একে অপরকে আলিঙ্গন করেন। এলাকায় আগে যা হয়েছে ভুলে যাবো। হানাহানি-মারামারি চাই না।আগামী নির্বাচনে আমরা অংশগ্রহণ করবো। আমার বিশ্বাস আমাদের প্রতিপক্ষ নির্বাচনে আসবে। আমি মা-বোনদের বলবো ছেলে-মেয়েদের লেখাপড়া করাবেন। আমি অনেক কষ্ট করে লেখাপড়া করেছি। আমার মা-বাবা আমাদের জন্য অনেক কষ্ট করেছেন। তাদের কাছে অনেক ঋণ। আপনাদেরকে মা-বাবার প্রতি কৃতজ্ঞ থাকতে হবে।তাদের যত্ন করতে হবে। আমি মানুষকে ভালোবাসি। মানুষের কল্যাণের জন্য কাজ করি। হানাহানির রাজনীতি বন্ধ করুন। আমার বিরুদ্ধে ১৭টি মামলা দেয়া হয়েছে। খুনের মামলার আসামি ছিলাম। তিনি বিরোধীদলীয় নেতাকর্মীদের ইঙ্গিত করে বলেন- আমাদের বিরুদ্ধে হাজার-হাজার মামলা করেছেন। আপনারা যে ক্ষতি করেছেন, আগে ক্ষতিপূরণ প্রদান করেন। তারপর রাজনীতি করেন। তিনি আওয়ামীলীগ দলীয় চেয়ারম্যান, মেম্বারদের উদ্দেশ্যে বলেন যেসব এলাকা পিছিয়ে আছে আপনারা সবাই কাজ করার জন্য প্রতিযোগিতায় লেগে যান। এলাকার একটা লোকও যেন কষ্ট না পায়, সে কাজটা আপনারা করবেন। আমরা সম্মিলিতভাবে এলাকাকে ঢেলে সাজাবো। সবাই বাড়ি-বাড়ি গিয়ে সবাইকে উন্নয়নের ধারায় এগিয়ে নিয়ে যাব। আজকের এ জনসভার মাধ্যমে আমরা নির্বাচনী কাজ শুরু করেছি। নাঙ্গলকোটের যেসব এলাকায় মুক্তিযোদ্ধারা শহীদ হয়েছেন এবং মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি বিজড়িত স্থান রয়েছে। এগুলোকে আমরা রক্ষাণাবেক্ষন করবো। তাদের স্মৃতি রক্ষার্থে স্মৃতিসৌধ নির্মাণ করবো। পেড়িয়া ইউনিয়নে শহীদ মিনার নির্মাণ করা হবে।
জনসভায় পেড়িয়া ইউনিয় বিএনপি সাবেক সভাপতি এনায়েত উল্লা মজুমদার, বটতলী ইউনিয়ন বিএনপি নেতা গোলাম মাওলা, কাদবা গ্রামের ব্যবসায়ী হুমায়ুন কবির বজলু, শাকতলী গ্রামের শফিকুর রহমান, আবদুল মন্নান পৈশাগি গ্রামের শাহজাহানসহ বিপুল সংখ্যক বিএনপি দলীয় নেতাকর্মী আওয়ামীলীগে যোগদান করেন।

Please follow and like us:

সর্বশেষ খবর

এ বিভাগের আরও খবর

প্রধান সম্পাদক- খোরশেদ আলম চৌধুরী, সম্পাদক- আশরাফুল ইসলাম জয়,  উপদেষ্টা সম্পাদক- নজরুল ইসলাম চৌধুরী।

প্রধান সম্পাদক কর্তৃক  প্রচারিত ও প্রকাশিত

ঢাকা অফিস : রোড # ১৩, নিকুঞ্জ - ২, খিলক্ষেত, ঢাকা-১২২৯,

সম্পাদক - ০১৫২১৩৬৯৭২৭,০১৬০১৯২০৭১৩

Email-dailynayaalo@gmail.com নিউজ রুম।

Email-Cvnayaalo@gmail.com সিভি জমা।

 

 

সাইট উন্নয়নেঃ ICTSYLHET