২৬শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, সোমবার, ১১ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৫ই জিলহজ, ১৪৪২ হিজরি

শিরোনামঃ-

বাগমারায় কপি নিয়ে বিপাকে কৃষক,খাচ্ছে গরু ছাগলে

প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

আপডেট টাইম : ফেব্রুয়ারি ১০ ২০২১, ১৮:৫৭ | 698 বার পঠিত

নাজিম হাসান,রাজশাহী থেকে:
রাজশাহীর বাগমারা এলাকায় ফুল কপি অথাৎ বাঁধা কপির কদর এখন কমে গেছে। জমি পরিস্কার করার জন্য কৃষক এখন এই ফুল কপি বাঁধা কপি এনে খুরচা ও পাইকারি বিক্রেতাদের দিয়ে যাচ্ছেন। তারা এই কপি নিয়ে পড়েছে বিপাকে। দিনের পর দিন এসব বিক্রি না হওয়ায় অবশেষে দোকানীরা এসব সবজি ফেলে দিচ্ছে অথবা গরু ছাগলে খাওয়ার জন্য যে কেউ চাইলে তাকে দিয়ে দিচ্ছেন। সম্প্রতি উপজেলা ভবানীগঞ্জ ও তাহেরপুর হাট ঘুরে ফুল কপি ও বাঁধা কপির এমন চিত্রই দেখা গেছে। অথচ শীতের শুরুতে এই ফুলকপি বাঁধা কপি ৮০ থেকে একশ টাকা কেজি দরে বিক্রি হলেও এখন এসব ঠিকা দরেও বিক্রি করতে হিমসিম খাচ্ছে কৃষক। গতকাল বুধবার ভবানীগঞ্জ ও তাহেরপুর বাজার ঘুরে দেখা গেছে বড় বড় সাইজের চারটি ফুলকপি ২০ টাকাতেই বিক্রি করতে পারছে না খুরচা দোকানীরা। বাজারের খরচা দোকানী সাইদুর রহমান জানান, এখন বাজারে প্রায় সব সবজির দাম কমতির দিকে। চারশ থেকে পাঁচশ টাকা মণ দরে বিক্রি হচ্ছে আলু। পিয়াজের দাম একেবারে কমতি। ভালো মানের পিয়াজ এখন ২০ থেকে ২৫ টাকা কেজি। এই বাজারের তরকারি ব্যবসায়ী সাইদুর সহ অন্যরা জানান, বাজারে এখন শীতকালীন সবজির কদর দিন দিন কমে যাচ্ছে। বাজারে নতুন করলা ও পটল ওঠা শুরু হয়েছে। তাই এখন ক্রেতারা শীতকালীন সবজি থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে। ফলে এসব সবজি এখন গরু ছাগল ও ক্ষেত্র বিশেষে মাছের খাদ্যে পরিনত হয়েছে। মাড়িয়ার কৃষক লুৎফর রহমান জানান, তিনি এবার আড়াই বিঘা জমিতে ফুলকপি ও বাঁধা কপির চাষ করেছিলেন। শীতের মাঝামাঝি তিনি এই কপি উত্তোলন করে খরচ বাদে প্রায় দেড় লক্ষ টাকা লাভ করেছেন। এখন জমি পরিস্কার করার জন্য তিনি এই কপিগুলো তুলে বাজারে দিয়ে আসছেন। কোন কোন ব্যবসায়ী তার কপি নিয়ে কিছু পয়সা দিচ্ছেন কেউ দিচ্ছেন না। এতে তার আপছোচ নেই। কারণ কপিতে তিনি খরচ বাদে ব্যাপক লাভ করেছেন। এখন যা পাচ্ছেন এটা তার উপরি। মাড়িয়ার আরেক কৃষক আসাদুজ্জামান জানান, তার এলাকায় কপি নিতে আগে বেপারীরা ্ট্রাক নিয়ে আসতো। এখন শহরেও এই সবজির কদর কমে যাওযায় তারাও আসছে না। তিনি জানান, তারা এলাকায় এসব সবজি(ফুল কপি বাঁধা কপি) এখন গরু ছাগল ও মাছের খাদ্যে পরিনত হয়েছে। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ রাজিবুর রহমান জানান, আরো কিছুদিন এসব সবজি(ফুল কপি বাঁধা কপি) জমিতে রাখলে কৃষক কিছুটা দাম পেত। তবে ওই সব জমিতে তারা ইরি বোরো আবাদের জন্য জমি পরিস্কার শুরু করায় দ্রুত এবং একসাথে সবজিগুলো বাজারে বিক্রি করছে। আর এই সবজি গুলো সংরক্ষনের কোন ব্যবস্থা নেই। ফলে চাহিদার তুলনায় যোগান বেড়ে যাওযায় সবজির দরপতন ঘটেছে।#

Please follow and like us:

পাঠক গনন যন্ত্র

  • 4647796আজকের পাঠক সংখ্যা::
  • 4এখন আমাদের সাথে আছেন::

সর্বশেষ খবর

এ বিভাগের আরও খবর

প্রধান সম্পাদক- খোরশেদ আলম চৌধুরী, সম্পাদক- আশরাফুল ইসলাম জয়,  উপদেষ্টা সম্পাদক- নজরুল ইসলাম চৌধুরী।

প্রধান সম্পাদক কর্তৃক  প্রচারিত ও প্রকাশিত

ঢাকা অফিস : রোড # ১৩, নিকুঞ্জ - ২, খিলক্ষেত, ঢাকা-১২২৯,

সম্পাদক - ০১৫২১৩৬৯৭২৭,০১৮৮০৯২০৭১৩

Email-dailynayaalo@gmail.com নিউজ রুম।

Email-Cvnayaalo@gmail.com সিভি জমা।

 

 

সাইট উন্নয়নেঃ ICTSYLHET